মাসে ২০ হাজার মার্কিন ডলার চুক্তিতে যুক্তরাষ্ট্রে লবিস্ট ফার্ম নিয়োগ করেছে সরকার। এ ফার্মটি যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্কোন্নয়নে কাজ করবে। বৃহস্পতিবার বিকেলে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এ তথ্য জানিয়েছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম।

তিনি জানান, যুক্তরাষ্ট্রে 'নেলসন মুলিন্স' নামে একটি প্রতিষ্ঠানকে অতি সম্প্রতি নিয়োগ দিয়েছে সরকার। প্রতিষ্ঠানটি মূলত বাংলাদেশের পক্ষে 'জিআর' (গভর্নমেন্ট রিলেশন) প্রতিষ্ঠান হিসেবে কাজ করবে। আশা করা হচ্ছে, প্রতিষ্ঠানটি বাংলাদেশ-যুক্তরাষ্ট্র সম্পর্ক গভীর ও বেগবান করতে সহায়তা করবে। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যোগাযোগের পর স্বচ্ছ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে এ প্রতিষ্ঠানকে মাসে ২০ হাজার চুক্তিতে এক বছরের জন্য নিয়োগ করা হয়েছে।

এক প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী বলেন, এর আগে নিয়োগ করা আরেকটি ফার্ম বিজিআরকে বাদ দেওয়া হয়নি। এ প্রতিষ্ঠানটি বাংলাদেশের ইতিবাচক ভাবমূর্তি তুলে ধরবে। একই সঙ্গে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালানোর তথ্য জানিয়ে এসব অপপ্রচারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতে সহায়তা দেবে।

প্রতিষ্ঠানটির কাজ কী হবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, মূলত দুই দেশের সরকারের মধ্যে সম্পর্কোন্নয়নই হবে এ প্রতিষ্ঠানের মূল কাজ। কারণ মার্কিন প্রশাসন ব্যাপক জায়গা। যুক্তরাষ্ট্রের প্রশাসনিক ব্যবস্থাও আলাদা। এ কারণে একটি দূতাবাস ও চার-পাঁচজন কর্মকর্তা দিয়ে মার্কিন প্রশাসনের সব জায়গায় পৌঁছানো সম্ভব নয়। নতুন নিয়োগ করা প্রতিষ্ঠান মার্কিন প্রশাসনের সঙ্গে সরকারি পর্যায়ে সম্পর্ক জোরদারে ভূমিকা রাখবে।

বাংলাদেশ যুক্তরাষ্ট্রের চাপে আছে বলেই জিআর প্রতিষ্ঠান নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে কিনা জানতে চাইলে প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বলেন, 'নট অ্যাট অল। একেবারেই চাপে নয়। বরং খুব দ্রুত দেখতে পাওয়া যাবে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে একাধিক গুরুত্বপূর্ণ পর্যায়ে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক হচ্ছে।' তিনি বলেন, 'বাংলাদেশ সম্পর্কে ভুল ধারণা ও বাংলাদেশবিরোধী অপপ্রচার বন্ধ করার লক্ষ্যে এ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। প্রতিষ্ঠানটিকে লবিস্ট প্রতিষ্ঠান বলা যাবে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, আসলে লবিস্ট, পিআর, জিআর প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে আগে এত বেশি আলোচনা ছিল না। সম্প্রতি এসব বিষয় আলোচনায় এসেছে। তবে অবশ্যই এ প্রতিষ্ঠানকে লবিস্ট ফার্ম বলা যাবে।'

এর আগে যুক্তরাষ্ট্র র‌্যাবের সাবেক ও বর্তমান কয়েকজন কর্মকর্তার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের পর লবিস্ট ফার্ম, ল ফার্ম নিয়োগ এবং যুক্তরাষ্ট্রে আইনি প্রক্রিয়া চালানোর বিষয়টি আলোচনায় আসে। গত মঙ্গলবার প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন, র‌্যাবের ওপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে জোর কূটনৈতিক প্র্রচেষ্টার পাশাপাশি আইনি প্রচেষ্টা অব্যাহত আছে।