গোপালগঞ্জে 'টুঙ্গিপাড়া: হৃদয়ে পিতৃভূমি' শীর্ষক শ্রদ্ধা নিবেদন অনুষ্ঠান সামনে রেখে ব্যাপক প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। মুজিববর্ষের সমাপনী এবং স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ঘিরে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হচ্ছে। বর্ণাঢ্য ও জমকালো আয়োজনের প্রস্তুতি তদারকি করতে প্রতিদিনই এখানে আসছেন প্রশাসনের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা। বিভিন্ন দিকনির্দেশনা দেওয়ার পাশাপাশি প্রস্তুতি পর্বের সব বিষয় খতিয়ে দেখছেন তারা।

আগামী ১৭ মার্চ রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিসৌধে ফুল দিয়ে এ অনুষ্ঠানের শুভ সূচনা করবেন তারা। বিকেলে বঙ্গবন্ধু সমাধিসৌধ কমপ্লেপের পাবলিক প্লাজায় হবে শিশু সমাবেশ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি থাকবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এছাড়াও আগামী ১৯ থেকে ২৫ মার্চ টুঙ্গিপাড়া সরকারি শেখ মুজিবুর রহমান বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ মাঠে সাত দিনব্যাপী আন্তর্জাতিক লোকজ মেলা অনুষ্ঠিত হবে।

এসব অনুষ্ঠান সামনে রেখে বঙ্গবন্ধু সমাধিসৌধ কমপ্লেপসহ পার্শ্ববর্তী এলাকায় চলছে শোভাবর্ধন ও বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ। টুঙ্গিপাড়া উপজেলা সদরের আট কিলোমিটার সড়কও সাজানো হচ্ছে বর্ণিলভাবে। নির্মাণ করা হচ্ছে সুদৃশ্য তোরণ। আর লোকজ মেলার জন্য বসছে আন্তর্জাতিক মানের প্যান্ডেল ও স্টল।

গোপালগঞ্জের জেলা প্রশাসক শাহিদা সুলতানা বলেন, 'টুঙ্গিপাড়া :হৃদয়ে পিতৃভূমি' শীর্ষক শ্রদ্ধা নিবেদন অনুষ্ঠানে যোগ দিতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী সম্মতি দিয়েছেন। এখন পর্যন্ত তিনটি প্রস্তুতি সভা করা হয়েছে। ঢাকা বিভাগীয় কমিশনারসহ পদস্থ কর্মকর্তারা টুঙ্গিপাড়া পরিদর্শন করেছেন। অনুষ্ঠানকে জমকালো করে তুলতে সব দপ্তর নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।