সদ্যপ্রয়াত সাবেক রাষ্ট্রপতি বিচারপতি সাহাবুদ্দিন আহমেদকে রোববার বনানী কবরস্থানে চিরনিদ্রায় শায়িত করা হবে।

এর আগে বিচারপতি সাহাবুদ্দিন আহমদের মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয় তার পৈতৃকভিটা নেত্রকোণার পেমই গ্রামে। সেখানে প্রথম দফা জানাজা শেষে তার মরদেহ ফিরিয়ে আনা হবে গুলশানের বাসভবনে। তারপর শনিবার সন্ধ্যা ৬টায় সাহাবুদ্দীন আহমেদের মরদেহ নিয়ে যাওয়া হবে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে হিমঘরে।

রোববার সকাল ১০টায় সুপ্রিম কোর্টে সামনে জাতীয় ঈদগাহ ময়দানে দ্বিতীয় জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে তাকে বনানী কবরস্থানে দাফন করা হবে।

বিচারপতি সাহাবুদ্দিন আহমেদের পরিবারের পক্ষ থেকে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

শনিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ঢাকা সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন বাংলাদেশের সাবেক রাষ্ট্রপতি ও সাবেক প্রধান বিচারপতি সাহাবুদ্দীন আহমদ। তার বয়স হয়েছিল ৯২ বছর।

গত ফেব্রুয়ারিতে গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় সাহাবুদ্দীন আহমদকে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) ভর্তি করা হয়। তিনি বেশ কয়েক বছর ধরে  বার্ধক্যজনিত অসুস্থতায় ভুগছিলেন। তার পরিবারের সদস্যরা জানান, সেখানে ভর্তি করানোর পর তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে আইসিইউতে নেওয়া হয়।

সাবেক প্রধান বিচারপতি সাহাবুদ্দীন আহমদ ১৯৯০ সালে এরশাদ সরকারের পতনের পর অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের প্রধান ছিলেন। ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর তাকে রাষ্ট্রপতি করা হয়। ২০০১ সালের ১৪ নভেম্বর তিনি রাষ্ট্রপতির পদ থেকে অবসর নেন।


সাবেক এই প্রধান বিচারপতির ছেলে-মেয়েদের মধ্যে বড় মেয়ে অধ্যাপক ড. সিতারা পারভিন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক ছিলেন। ২০০৫ সালে যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগোতে এক মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যান। ওই দুর্ঘটনায় তার দ্বিতীয় মেয়ে শাহানা স্মিথের স্বামী গুরুতর আহত হয়ে পরের বছর মারা যান। শাহানা বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রেই রয়েছেন। ছোট মেয়ে সামিয়া পারভীন একজন স্থপতি। ছেলে শিবলী আহমদ একজন পরিবেশ প্রকৌশলী।