প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ১৯৭০ সালের ৫ ডিসেম্বর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব যেদিন হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর মৃত্যুবার্ষিকীতে ভাষণ দিচ্ছিলেন সেই সময় তিনি ঘোষণা দিয়েছিলেন, এই ভূখণ্ডের নাম হবে বাংলাদেশ। আজকে আমরা বাঙালি জাতি বাংলাদেশ পেয়েছি, জাতি পেয়েছি, একটা স্বাধীন জাতিসত্তা পেয়েছি। সেই অর্জনের মাসই হচ্ছে মার্চ মাস। বৃহস্পতিবার 'বঙ্গবন্ধু বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ফেলোশিপ' প্রদান অনুষ্ঠানে গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে এ কথা বলেন তিনি। 

সরকারপ্রধান বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পরিকল্পনা অনুযায়ী বাংলাদেশের পতাকার ডিজাইন করা হয়েছে। এই পতাকার সঙ্গে জাপানের পতাকার মিল আছে। কারণ জাপান হচ্ছে উদিত সূর্যের দেশ। সাদার মধ্যে লাল। আর বাংলাদেশ সবুজ বাংলাদেশ। সেই সবুজের মাঝে লাল। এই পতাকার চিন্তাটা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের। 

তিনি বলেন, আজকে জয় বাংলা স্লোগান আমাদের জাতীয় স্লোগানের স্বীকৃতি পেয়েছে উচ্চ আদালতের রায়ে। এই জয় বাংলা স্লোগানটা কবি নজরুল ইসলামের কবিতা থেকেই নেওয়া। এই জয় বাংলা স্লোগানটাও কিন্তু বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবই নিয়েছিলেন এবং প্রথম ছাত্রলীগকে নির্দেশ দিয়েছিলেন যে তোমরা এটা মাঠে নিয়ে যাও। জনগণের সামনে আগে তোমরা নিয়ে যায়। এটা ধীরে ধীরে আমাদের জাতীয় স্লোগানে পরিণত হয়েছে। এটা আমাদের জন্য বিরাট একটা অর্জন। এটা আমরা মার্চ মাসেই পেলাম, যে মাসে লাখো শহীদ তাদের রক্ত দিয়ে স্বাধীনতা এনে দিয়েছে।'

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ৭০ সালের ডিসেম্বর মাসে নির্বাচন হয়। সমগ্র পাকিস্তানে আওয়ামী লীগ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের নেতৃত্বে সংখ্যা গরিষ্ঠতা অর্জন করে। ইয়াহিয়া খান মিলিটারি ডিকটেটর, আইয়ুবের পতনের পর ক্ষমতা দখল করে। ৩রা মার্চ সংসদ অধিবেশন ডাকা হয়েছিল। একটা বিষয় লক্ষণীয়, ডিসেম্বরে ইলেকশন হয়, জানুয়ারি মাস যায়, ফেব্রুয়ারি মাস যায় এরপর ৩রা মার্চ ডাকা হয় সংসদ অধিবেশন। পূর্ব পাকিস্তানে অর্থাৎ ঢাকায় হওয়ার কথা সেই অধিবেশন। পাকিস্তান থেকে অনেক সদস্যরাও চলে এসেছিলেন। কিন্তু জুলফিকার আলী ভুট্টোর সেখানে আপত্তি।