সাতক্ষীরার কলারোয়ার জালালাবাদের অষ্টম শ্রেণি পড়ুয়া শিক্ষার্থী সানচিতা হোসেন সেজ্যোতি (১৩) হত্যায় জড়িত থাকার অভিযোগে তার কথিত প্রেমিক আব্দুর রহমানকে (২০) গ্রেপ্তার করা হয়েছে। 

রোববার রাত ১০টার দিকে কলারোয়া পৌর সদরের আফজালের মোড় এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই সোহরাব হোসেন। গ্রেপ্তার আব্দুর রহমান উপজেলার জালালাবাদ গ্রামের আলতাফ হোসেনের ছেলে ও হাবিবুল ইসলাম কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র।

কলারোয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নাসির উদ্দীন মৃধা বলেন, ‘জিজ্ঞাসাবাদে প্রেমিক আব্দুর রহমান হত্যার কথা স্বীকার করেছেন। প্রেমিক আব্দুর রহমান বলেছে, সেজ্যোতির সঙ্গে তার প্রেমের সম্পর্ক থাকার পরও সে অন্য ছেলের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে। এটা সে মানতে পারেনি।’

ওসি জানান, রহমানকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। আসামির ১৬৪ ধারার জবানবন্দি গ্রহণের পর আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ঘটনার দিন গত ২৭ মার্চ রাত ৯টার দিকে তারা দেখা করেন। এসময় অন্য ছেলের সঙ্গে সম্পর্কের বিষয়টি নিয়ে তাদের মধ্যে কথাকাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে আব্দুর রহমান সেজ্যোতিকে ধাক্কা দেন। এতে দেওয়ালে পড়ে জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন সেজ্যোতি। ধামাচাপা দিতে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে শ্বাসরুদ্ধ করে হত্যার পর মাষ্টার পাড়ার মাঠে আলাউদ্দিন সরদারের কুল বাগানের ড্রেনে সেজ্যোতির মরদেহ ফেলে রাখেন তিনি।

২৮ মার্চ সকালের দিকে উপজেলার জালালাবাদ গ্রামের আলাউদ্দিন সরদারের কুল বাগানের ড্রেন থেকে সেজ্যোতির মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় নিহতের মা লায়লা পারভীন বাদী হয়ে অজ্ঞাত আসামি করে কলারোয়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।