ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ-টিআইবির অর্থায়নে অস্ট্রেলিয়ান কোম্পানি বিএইচপির নাম জড়িয়ে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের মুখ্য সচিব আহমদ কায়কাউসের দেওয়া বক্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়েছে সংস্থাটি। 

রোববার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে টিআইবির পক্ষ থেকে মুখ্য সচিবের বক্তব্যকে বিভ্রান্তিকর এবং ভুল ধারণাভিত্তিক বলে জানানো হয়। গত শনিবার এফবিসিসিআই আয়োজিত কর্মশালায় বক্তৃতাকালে আহমদ কায়কাউস কোভিড টিকা পেতে টিআইবির তোলা ঘুষের অভিযোগ উড়িয়ে দেন। 

তিনি বলেছিলেন, 'টিআইবিকে অর্থায়ন করছে অস্ট্রেলিয়ান ফার্ম বিএইচপি। প্রতিষ্ঠানটি পরিবেশের ক্ষতি করার জন্য বার বার জরিমানার সম্মুখীন হয়েছে।'

প্রতিবাদপত্রে টিআইবি বলছে, ‘মুখ্য সচিব তার বক্তব্যে টিআইবিকে উদ্ধৃত করে কোভিড-১৯ টিকা কেনায় গড়ে ৬৯ টাকা ঘুষ দেওয়ার যে বিষয় অবতারণা করেছেন, সেটি পুরোপুরি বিভ্রান্তিকর। কেননা ১২ এপ্রিল প্রকাশিত ওই প্রতিবেদনে ৬৯ টাকা ঘুষ দেওয়ার বিষয়টি এসেছে টিকা গ্রহণের ক্ষেত্রে গ্রহীতাদের বুথ ফেরত জরিপের ফলাফলে। যা কোনোভাবেই টিকা কেনাকাটার সাথে যুক্ত নয়।'

টিআইবি কখনও বিএইচপি থেকে অর্থ নেয়নি দাবি করে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, 'বিএইচপির সাথে টিআইবির কখনও কোনোভাবেই পরিচিতি বা যোগাযোগও হয়নি। টিআইবিকে মূলত অর্থায়ন করে আসছে ব্রিটিশ ফরেইন, কমনওয়েলথ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট অফিস (এফসিডিও), সুইডিশ ইন্টারন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট কোঅপারেশন এজেন্সি (সিডা) এবং সুইস এজেন্সি ফর ডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড কোঅপারেশন (এসডিসি)।'

টিআইবির অর্থায়ন ও উল্লিখিত গবেষণা প্রতিবেদন বিষয়ে যে কোনো ধরনের ভুল বোঝাবুঝি এড়াতে তথ্য বিনিময় ও অধিপরামর্শ কার্যক্রমে সংস্থাটি আগ্রহী বলেও বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।