রাজধানীর পল্লবী থানার হেফাজতে গাড়িচালক ইশতিয়াক হোসেন জনিকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় সাজাপ্রাপ্ত পুলিশের 'সোর্স' রাসেল ইসলামকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন আদালত। ঢাকার মহানগর দায়রা জজ কে এম ইমরুল কায়েশ সোমবার সাজা পরোয়ানা কার্যকর করে এ আদেশ দেন।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী তাপস পাল বলেন, জনি হত্যা মামলার দণ্ডিত পলাতক আসামি রাসেল গত মার্চে গ্রেপ্তার হয়। এরপর থেকে মাদক মামলায় কারাগারে ছিলেন। সোমবার তাকে জনি হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে কারাগারে পাঠানো হয়েছে এবং এর মধ্য দিয়ে তার সাজা কার্যকর করা শুরু হল।

জনি হত্যা মামলায় ২০২০ সালের ৯ সেপ্টেম্বর রাসেলকে ৭ বছরের কারাদণ্ড দেন আদালত। চলতি বছর ৬ মার্চ লালবাগ বেড়িবাঁধ এলাকায় সাড়ে ৭ লাখ টাকার হেরোইনসহ তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০১৪ সালের ৯ ফেব্রুয়ারি পল্লবীর ইরানি ক্যাম্পে একটি গায়ে হলুদের অনুষ্ঠানে কথা কাটাকাটির ঘটনায় জনি ও তার ভাই রকিকে তুলে নেয় পুলিশ। তাদের থানায় নিয়ে বেদম মারপিট করা হলে জনি মারা যান। ওই বছরের ৭ আগষ্ট হেফাজতে মৃত্যু নিবারণ আইনে মামলা করেন জনির ভাই রকি।

২০২০ সালের ৯ সেপ্টেম্বর ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারক কে এম ইমরুল কায়েশ রায়ে তিন পুলিশ কর্মকর্তার যাবজ্জীবন এবং দুই সোর্স সুমন ও রাসেলকে ৭ বছরের কারাদণ্ড দেন। এরা হলেন-পল্লবী থানার সাবেক এসআই জাহিদুর রহমান জাহিদ, এএসআই রাশেদুল হাসান ও কামরুজ্জামান মিন্টু, পুলিশের সোর্স সুমন ও রাসেল।