নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় তিতাস গ্যাসের পাইপ লিকেজ হয়ে সৃষ্ট অগ্নিকাণ্ডে দগ্ধ গৃহকর্তা নুরুল আমিন (৩০) মারা গেছেন।

ঘটনার তিনদিন পর মঙ্গলবার রাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেখ হাসিনা বার্ন ইউনিটে মারা যান তিনি। আশঙ্কাজনক অবস্থায় স্ত্রী আর্জিনা বেগম বার্ন ইউনিটের আইসিউতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

এর আগে শনিবার রাতে ফতুল্লার দাপা বালুঘাটের ইদ্রাকপুর এলাকায় অগ্নিকাণ্ডে নুরুল আমিন ও তার স্ত্রী আর্জিনা বেগম (২২) দগ্ধ হন।

নিহত নুরুল আমিন টাঙ্গাইল নাগরপুরের সাখাইল গ্রামের ওয়াজেদ আলীর ছেলে। তিনি স্ত্রীকে নিয়ে দাপা ইদ্রাকপুরে রুপচাঁন বেপরীর বাড়িতে ভাড়ায় থাকতেন।

বাড়ির ম্যানেজার মো. আজাদ বলেন, গত শনিবার রাতে বাড়ির দ্বিতীয় তলায় তিতাস গ্যাসের পাইপ লিকেজ হয়ে আগুন ধরে। এতে ওই দম্পত্তি দগ্ধ হন। খবর পেয়ে বিসিক ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিট ঘটনাস্থলে এসে আগুন নিয়ন্ত্রণ আনে। এর আগেই ওই দম্পত্তিকে উদ্ধার করে শেখ হাসিনা বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়। সেখানে মঙ্গলবার রাতে নুরুল আমিন মারা যান। তার স্ত্রী আর্জিনা বেগমের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

ফতুল্লা মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) তরিকুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, মরদেহ ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে রাখা রয়েছে।