ধানের শীষে শিশির বিন্দু, শিশিরে ভেজা ঘাস, ঘন কুয়াশায় চারপাশ ঝাপসা- এমন দৃশ্যগুলো সাধারণত শীতকালেই হয়ে থাকে। তবে এর ব্যতিক্রম দেখা দিয়েছে দিনাজপুরে। হঠাৎ করেই বৈশাখের এই খরতাপে শীতের দৃশ্য দেখা মিলছে। এমন দৃশ্য এর আগে কখনই দেখেননি বলে জানিয়েছেন বয়োজ্যেষ্ঠরা।

রোববার ভোরের দৃশ্যটা ছিল পুরোপুরিই শীতকালের। যদিও শীতকালে যে ধরনের তাপমাত্রা থাকে তেমন তাপমাত্রা ছিল না। শনিবার রাত থেকেই দিনাজপুর সদরের বিভিন্ন এলাকায় এমন কুয়াশার দৃশ্য দেখা মিলেছে।

স্থানীয়রা জানান, গত কয়েকদিন আগেই এই এলাকায় শিলাবৃষ্টি হয়েছে। দিনে প্রচণ্ড রোদের দেখা মিলছে। আর রাত নামার সঙ্গেই শীতের আমেজের মতো কুয়াশায় ছেয়ে যাচ্ছে। তবে এটি বেশ কয়েকদিন ধরেই চলছে।

দিনাজপুর সদর উপজেলার রাজবাটী এলাকার লক্ষণ সরকার বলেন, ‘সকালে আমি বাড়ি থেকে অফিসে আসি ৭টার দিকে। এজন্য আমাকে ভোরে উঠতে হয়। ভোরে উঠে দেখি প্রচণ্ড কুয়াশা নেমেছে। আমি এর আগে কখনই বৈশাখ মাসে এমন কুয়াশা দেখিনি।’

সদরের শেখপুরা ইউনিয়নের বোলতৈড় এলাকার সেলিম রেজা বলেন, ‘রমজানের জন্য ভোরে সাহরি খেতে উঠে দেখি কুয়াশা। নামাজ পড়তে যাওয়ার সময় ঘাসের ওপর শিশির বিন্দু, ধানবাড়িতেও শিশির। আসলে এমনটি আগে কখনও হয়নি। মনে হচ্ছিল যে এটি বোরো মৌসুম না, আমন মৌসুম।’

দিনাজপুর আঞ্চলিক আবহাওয়া পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রের সিনিয়র কর্মকর্তা তোফাজ্জুল হোসেন জানান, ‘সাধারণত বড় বৃষ্টির পরে মাঝে মধ্যে কুয়াশার দেখা মেলে। বৃষ্টির পরে রোদ হওয়ায় জলীয় বাস্পের জন্য কুয়াশা দেখা যাচ্ছে। এটি স্বাভাবিক একটি অবস্থা।’