সেবা প্রকাশনীর জনপ্রিয় স্পাই থ্রিলার ‘মাসুদ রানা’ সিরিজের ২৬০টি বই এবং ‘কুয়াশা’ সিরিজের ৫০টি বইয়ের স্বত্বাধিকারী নিয়ে হাইকোর্টের দেওয়া রায়ের বিরুদ্ধে করা আপিল আবেদন শুনানির দিন আগামী ৩০ মে ধার্য করা হয়েছে।

প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন বেঞ্চে এই আপিলের শুনানি গ্রহণ করা হবে। আপিল বিভাগের চেম্বার জজ আদালতের বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম রোববার এ দিন ধার্য করেন। এদিন হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে করা আপিলে 'নো অর্ডার' দেওয়া হয়।

এদিন আদালতে আপিল আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মো. মুরাদ রেজা। কপিরাইট অফিসের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মো. খুরশীদ আলম খান ও ব্যারিস্টার ইফতাবুল কামাল অয়ন।

খুরশীদ আলম খান সাংবাদিকদের বলেন, প্রয়াত আনোয়ার হোসেনের দুই ছেলে ও এক মেয়ে রিটের পক্ষভুক্ত হয়ে হাইকোর্টেল রায়ের বিরুদ্ধে লিভ টু আপিল আবেদন করেছেন। পাশাপাশি হাইকোর্টের রায় স্থগিতেরও আবেদন জানিয়েছিলেন। চেম্বার জজ আদালত স্থগিতাদেশ না দিয়ে লিভ টু আপিলের শুনানির জন্য আগামী ৩০ মে দিন ধার্য করেছেন।

জনপ্রিয় মাসুদা রানা ও কুয়াশা সিরিজ প্রয়াত কাজী আনোয়ার হোসেনের অমর সৃষ্টি। বিদেশি কাহিনী অবলম্বনে এই সিরিজের কিছু বই তিনি বিভিন্ন সময় অন্য লেখকদের দিয়ে রচনা করতেন। যাদের একজন প্রয়াত কাজী আবদুল হাকিম। আর প্রকাশক ছিলেন কাজী আনোয়ার হোসেন।

প্রকাশকের সঙ্গে রয়্যালটি নিয়ে বিরোধ থেকে বইয়ের স্বত্বাধিকারী নিয়েও আইনি জটিলতা দেখা দেয়। কাজী আবদুল হাকিম নিজেকে মাসুদ রানা ও কুয়াশা সিরিজের স্বত্বাধিকারী দাবি করে ২০১৯ সালে কপিারইট অফিসে আবেদন করেন। সেখান থেকেই এই আইনী জটিলতা শুরু। বিষয়টি এখন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের চূড়ান্ত নিষ্পত্তি হওয়ার অপেক্ষায় রয়েছে। এর মধ্যে গত আগষ্ট থেকে জানুয়ারি মধ্যে কাজী আব্দুল হাকিম এবং কাজী আনোয়ার হোসেন মারা যান।