পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) চেয়ারম্যান ইমরান খান দাবি করেছেন, তার সরকারকে উৎখাতে যে ‘বিদেশি ষড়যন্ত্র’ হয়েছিল তার সত্যতা নিশ্চিত করেছে যুক্তরাষ্ট্রের ফক্স নিউজের অনুষ্ঠানে করা মার্কিন প্রতিরক্ষা বিশ্লেষকের মন্তব্য। এ ছাড়া বিশ্লেষকের ওই মন্তব্যে বিদেশি ষড়যন্ত্রের অভিযোগের ব্যাপারে সব সংশয় দূর হয়েছে বলেও ইমরানের দাবি। 

পাকিস্তানের সাবেক এই প্রধানমন্ত্রীর দাবি, পাকিস্তানের জন্য স্বাধীন পররাষ্ট্র নীতি গ্রহণ করায় যুক্তরাষ্ট্রের ইন্ধনে ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে গত মাসে তাকে ক্ষমতাচ্যুত করা হয়। সোমবার পাকিস্তানের সংবাদমাধ্যম ডনের এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়। 

এর আগে যুক্তরাষ্ট্রের টেলিভিশন চ্যানেল ফক্স নিউজের একটি অনুষ্ঠানে প্রতিরক্ষা বিশ্লেষক ড. রেবেকা গ্রান্টের কাছে জানতে চাওয়া হয়েছিল পাকিস্তানের প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের বার্তা কি হওয়া উচিত? উত্তরে তিনি বলেন, ইউক্রেনকে পাকিস্তানের সমর্থন করতে হবে এবং এখনই রাশিয়ার সঙ্গে চুক্তি করার আগ্রহে রাশ টানতে হবে। চীনের সঙ্গে তাদের সম্পৃক্ততা সীমিত করতে হবে এবং আমেরিকা বিরোধী নীতি বন্ধ করতে হবে- যেগুলোর কারণে কয়েক সপ্তাহ আগে ইমরান খান ভোটের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী অফিস থেকে সরেছেন। 

তিনি বলেন, এখন পাকিস্তানে আমেরিকা-বিরোধী, রাশিয়াপন্থি নীতির ব্যাপারে স্থির হওয়ার সময়।

প্রসঙ্গত, গ্রান্ট ফক্স নিউজের একজন কন্ট্রিবিউটর এবং ইউক্রেনে রাশিয়ার আক্রমণের বিষয়ে বিশ্লেষণধর্মী মতামত দিয়ে থাকেন। এ ছাড়া তিনি জাতীয় এবং সামরিক সম্পর্কিত বিষয়ে বিশ্লেষণী মতামত দেন। তার আরও একটি পরিচয় হলো তিনি যুক্তরাষ্ট্রের স্বাধীন গবেষণা সংস্থা আইআরআইএসের সভাপতি। সংস্থাটি প্রতিরক্ষা এবং মহাকাশ বিষয়ে বিশেষজ্ঞ মতামত প্রদান করে।

সংস্থাটির ওয়েবসাইটে দেওয়া তথ্যানুসারে, গ্রান্ট যুক্তরাষ্ট্র সরকারের থিংক ট্যাঙ্ক র্যা ন্ড করপোরেশনের হয়ে কাজ করেছেন এবং মার্কিন বিমানবাহিনীর প্রধান ও এই বাহিনীর কর্মীদের ওপর কাজ করেছেন।

এদিকে গ্রান্টের করা মন্তব্যের ভিডিওটি সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ার পরই ইমরান খান একের পর এক টুইট করতে থাকেন এবং নিজের করা ‘বিদেশি ষড়যন্ত্রের’ দাবির সত্যতায় ওই বক্তব্য তুলে ধরেন। 

ইমরান খান বলেন, এটির (ভিডিওটি) মাধ্যমে গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত একজন প্রধানমন্ত্রী এবং তার সরকারকে কেন ক্ষমতাচ্যুত করা হয়েছিল সে ব্যাপার ‘সমস্ত সংশয় দূর’ হওয়া উচিত।