প্রেমের টানে ছেড়েছেন সংসার। স্বামীকে তালাক দিয়ে সহকর্মী ও প্রেমিক আজাহারুল ইসলামকে (২৭) বিয়ে করেন তাসলিমা জাহান ইমা (২৫)। কিন্তু প্রথম সংসারের ৩ বছর বয়সী শিশুসন্তান নামিয়া ফারিসকে নিয়ে আজাহারুল-তাসলিমার মধ্যে প্রায়ই ঝামেলা হতো। ঝামেলা এড়াতে ফারিসকে হত্যার পরিকল্পনা করেন আজাহার।

পরিকল্পনা অনুযায়ী তাসলিমার প্রথম সংসারের ৩ বছর বয়সী শিশুসন্তানকে হত্যা করেন তার সৎবাবা আজাহার। এরপর আইনি ঝামেলা ও শাস্তি এড়াতে ডাইনিং টেবিল থেকে পড়ে গিয়ে মারা যাওয়ার নাটক সাজান তিনি।

গত শুক্রবার রাজধানীর আশকোনা এলাকায় আইডিয়াল একাডেমি স্কুলের পাশে প্রবাসী কামাল হোসেনের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। এই বাসায় স্ত্রী তাসলিমাকে নিয়ে ভাড়া থাকেন ঘাতক আজাহারুল।

এতকিছু করেও অবশ্য শেষ রক্ষা হয়নি আজহারুলের। এ ঘটনায় স্ত্রী তাসলিমা জাহান বাদী হয়ে আজাহারুলের বিরুদ্ধে রাজধানীর দক্ষিণখান থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এ মামলায় ইতোমধ্যেই তাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই রেজিয়া খাতুন সমকালকে বলেন, শনিবার ৭ দিনের রিমান্ড চেয়ে আসামি আজাহারুলকে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। আর ময়নাতদন্তের জন্য ওই শিশুর লাশ ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে

দক্ষিণখান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মামুনুর রহমান সমকালকে জানান, সংসারে ঝামেলা এড়াতে আজাহার (সৎবাবা) শিশু নামিয়াকে হত্যা করেন। এরপর তারা মিথ্যা নাটক সাজানোর চেষ্টা করে। কিন্তু ব্যাপক জেরার মুখে হত্যার আদ্যপান্ত স্বীকার করে পুলিশের কাছে তারা জবানবন্দি দেন।

তিনি আরও বলেন, এ ঘটনায় আজাহারুলকে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠানো হয়েছে। মামলার তদন্তে এই ঘটনার সঙ্গে আর কারো জড়িত থাকার প্রমাণ পাওয়া গেলে তাকেও আইনের আওতায় আনা হবে।