জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অঙ্গীভূত বঙ্গবন্ধু মুক্তিযুদ্ধ বাংলাদেশ গবেষণা ইনস্টিটিউট পরিদর্শন করেছেন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. মশিউর রহমান। রোববার গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় অবস্থিত এই ইনস্টিটিউট পরিদর্শন করেন তিনি। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. নিজামউদ্দিন আহমেদ, ট্রেজারার প্রফেসর আবদুস সালাম হাওলাদার, গোপালগঞ্জের জেলা প্রশাসক শাহিদা সুলতানা, পরিকল্পনা ও উন্নয়ন দপ্তরের পরিচালক সুমন চক্রবর্তী প্রমুখ। 

রোববার জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ দপ্তরের পরিচালক আতাউর রহমানের পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। তারা বঙ্গবন্ধু মুক্তিযুদ্ধ বাংলাদেশ গবেষণা ইনস্টিটিউটের ভূমিসহ অবকাঠামো পরিদর্শন করেন। উপাচার্য ইনস্টিটিউটকে ঢেলে সাজানোর বিষয়ে দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহণে নির্দেশনা দেন। ইনস্টিটিউটে বঙ্গবন্ধু মিউজিয়াম, লাইব্রেরি স্থাপনের পরিকল্পনার কথাও জানান উপাচার্য।  

উল্লেখ্য, ১৯৯৮ সালে এই ইনস্টিটিউট স্থাপন করা হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০০০ সালে ৪ দশমিক ১৪৫ একর জমির উপর এই ইনস্টিটিউটের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের সময়ে ইনস্টিটিউটের কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়া হয়। ফলে এই ইনস্টিটিউট ভবনে কোনো কার্যক্রম পরিচালিত হয়নি। বর্তমান সরকারের সময়ে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বঙ্গবন্ধু ইনস্টিটিউটের কার্যক্রম ফের চালু করে। এরই ধারাবাহিকতায় এই ইনস্টিটিউটের ভবিষ্যত করণীয় নির্ধারণে এটি পরিদর্শন করেন বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। 

এদিকে বঙ্গবন্ধু মুক্তিযুদ্ধ বাংলাদেশ গবেষণা ইনস্টিটিউট পরিদর্শনের আগে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিসৌধে শ্রদ্ধা নিবেদন করে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার পরিবারের শহীদ সকল সদস্যের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। এ সময় তাদের রুহের মাগফিরাত এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দীর্ঘায়ু কামনা করে বিশেষ দোয়া ও  মোনাজাত করা হয়। এরপর উপাচার্য সমাধি কমপ্লেক্স সংলগ্ন বঙ্গবন্ধু জাদুঘর পরিদর্শন এবং পরিদর্শন বইয়ে তার মন্তব্য লেখেন।