খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার বলেছেন, দেশে কোনোভাবেই খাদ্য ঘাটতির সম্ভাবনা নেই। এখন পুরোনো চালের শেষ সময় এবং নতুন চালের আগমনের সন্ধিক্ষণ। শিগগির চালের দাম সহনীয় পর্যায়ে নেমে আসবে। গম নিয়েও কোনো চিন্তা করছি না। কারণ, প্রতিবেশী দেশ ভারত গম রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা দেয়নি।

বুধবার সচিবালয়ে নিজ দপ্তরে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

চালের দাম নিয়ন্ত্রণে সরকার নানা পদক্ষেপ নিয়েছে জানিয়ে খাদ্যমন্ত্রী বলেন, চালের দাম নিয়ে চিন্তার কিছু নেই। অটো রাইস মিল মালিকরা ধান কিনছেন। কিন্তু তারা উৎপাদনে যাননি। যে ধান দুই দিনে শুকানো হতো, বৃষ্টির জন্য সেটা পাঁচ থেকে সাত দিন লাগছে। আবার মৌসুমের শুরু ও শেষের সন্ধিক্ষণ ছাড়াও টানা বৃষ্টির কারণে চালের দাম কিছুটা বাড়তি। অতিবৃষ্টির কারণে মিলারদের চাতাল চালু রাখা সম্ভব না হাওয়ায় বর্তমানে চালের দাম বেড়েছে। চালের দাম নিয়ে চিন্তার কিছু নেই।

গম রপ্তানির ক্ষেত্রে ভারত প্রতিবেশী দেশের জন্য কোনো নিষেধাজ্ঞা দেয়নি বলে জানান সাধন চন্দ্র মজুমদার। তিনি বলেন, ভারত গম রপ্তানি বন্ধ করলেও সরকারি পর্যায়ে আমদানিতে কোনো সমস্যা হবে না। সরকারিভাবে আমরা তাদের চিঠিও দিয়েছি। খাদ্য মন্ত্রণালয় থেকেও চিঠি দেওয়া হবে, বেসরকারি পর্যায়ে গম আমদানিতে কোনো সমস্যা হওয়ার কথা নয়। সরকারের অনুমোদন সাপেক্ষে ভারত অনুমতি দেবে।

মন্ত্রী বলেন, বিশ্বে খাদ্য সমস্যা আছে। তবে কৃষিপ্রধান দেশ বলেই ধান-চালে আমাদের সমস্যা নেই। গম যতটুকু লাগবে, আমরা আমদানি করে নিতে পারব।