প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেছেন, ভোট তার নিয়মানুযায়ী হবে, দিনের ভোট দিনেই হবে। ভোট রাতে হবে না— এটি স্পষ্ট করে বলতে চাই।

মঙ্গলবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি একথা বলেন।

ইভিএমে ভুলত্রুটি ধরতে পারলে ১০ মিলিয়ন ডলার পুরস্কার দেওয়ার ঘোষণাকে উদ্ভট আখ্যা দিয়ে সিইসি বলেন, সিইসি এ ধরনের উদ্ভট কথা বলতেই পারেন না। তবে তার সহকর্মী নির্বাচন কমিশনার আনিছুর রহমান 'কিছুটা স্মৃতিভ্রমের কারণে' এই বক্তব্য দিয়েছেন বলে তিনি বিশ্বাস করেন।

এর আগে গত শনিবার মাদারীপুরে এক অনুষ্ঠানে নির্বাচন কমিশনার আনিছুর রহমান বলেন, 'বাংলাদেশের প্রতিটি রাজনৈতিক দলে আইটি বিশেষজ্ঞ আছেন। তাদেরও ইভিএম দেখানো হবে। ইভিএম তাদের হাতে ছেড়ে দেওয়া হবে, কোথায় ভুল আছে? আর কোন মেশিন কোথায় যাচ্ছে, কেউ জানে না। ইভিএমের কোনো ভুলত্রুটি যদি কেউ ধরতে পারেন, তার জন্য প্রধান নির্বাচন কমিশনার ১০ মিলিয়ন ডলার পুরস্কার দেওয়ারও ঘোষণা দিয়েছেন।'

সহকর্মী কমিশনার আনিছুর রহমানের এই বক্তব্য নির্বাচন কমিশনের নয় এবং সিইসিরও নয়-এটা স্পষ্ট করতেই এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। এ সময় তার সঙ্গে আনিছুর রহমানসহ অন্য কমিশনাররা উপস্থিত ছিলেন।

সিইসি বলেন, ইভিএম নিয়ে ইসি এখনও শতভাগ আস্থাভাজন হতে পারেনি। তারা কয়েকটি বৈঠক করেছেন। আরও বৈঠক হবে, সেখানে পর্যালোচনা করা হবে। 

বুধবার কারিগরি দলের সঙ্গে বৈঠক হবে। ইসি ইভিএম নিয়ে সবার আস্থা অর্জন করতে চায়। 

তিনি বলেন, নির্বাচনকে প্রহসনে রূপান্তর করার কোনো ইচ্ছে তাদের নেই। দিনের ভোট দিনেই হবে। 

তিনি বলেন, এটা আমরা অন্তর থেকে বলছি। সুন্দর নির্বাচন, অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের মাধ্যমে সুস্থ ধারা ধারা অব্যাহত থাকুক সেটাই আমরা চাই।

সিইসি বলেন, তার বাসায় এখন টিভি নেই, টিভি দেখার সময়ও তিনি পাননা। ইউটিউবে তিনি দেখতে পেয়েছেন, সেখানে বলা হচ্ছে সিইসি ১০ মিলিয়ন ডলার পুরস্কার ঘোষণা করেছেন। কিন্তু গত ছয় মাসে তিনি ‘টেন মিলিয়ন ডলার’ এই তিনটি শব্দ উচ্চারণই করেননি। ইভিএম নিয়ে চ্যালেঞ্জ দেওয়ার সময় এখনও আসেনি বলে জানান তিনি।

কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেন, তার একজন সহকর্মী (আনিছুর রহমান) এটি বলেছেন। তবে ওই কমিশনার সেভাবে বলেলনি। এই বক্তব্য শোনার পর ইসি বিষয়টি নিয়ে অভ্যন্তরীণ তদন্ত করেছে। যারা ইভিএম নিয়ে কাজ করছে, ইভিএম তৈরি করছে, তারা এটা বলেছেন, ভালবাসা বা উচ্ছাস থেকে। সেখান থেকে এই বিষয়টি এসেছে। এটা নির্বাচন কমিশনার আনিছুর রহমানের বক্তব্য নয়, তিনি আরেকজনের কাছ থেকে শুনে কোট (উদ্ধৃতি) করতে গিয়ে হয়ত একটু বিভ্রান্তি হয়ে গেছে।

সিইসি বলেন, বিভ্রান্তি ছড়িয়ে পড়েছে। চিফ ইলেকশন কমিশনার বলেছেন, টেন মিলিয়ন ডলার-এটা আমার কাছে একটা উদ্ভট কথা মনে হয়েছে। সিইসি এ ধরনের উদ্ভট কথা বলতেই পারেন না।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, এটা কমিশনের বক্তব্য নয়। কোনোভাবে কমিশনের কোনো কর্মচারীও একথা বলেননি, কমিশনার তো দূরের কথা, বলতে পারেন না।

সিইসি বলেন, মিডিয়ার সামনে কথা বলতে গিয়ে খেই হারিয়ে ফেলি। প্রশ্নবাণে জর্জরিত হয়ে অনেক সময় স্লিপ হয়ে যায়। কোনো কমিশনার ইচ্ছাকৃতভাবে কমিশনকে অপদস্ত করার জন্যে, সিইসিকে অপদস্ত করার জান্যে একথা বলেননি। কথাটা আসলে কিছুটা স্মৃতিভ্রমের কারণে হয়েছে বলে আমি বিশ্বাস করি।

কমিশনার আনিছুর রহমানের বক্তব্য নিয়ে আরেক প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, ভোট তার নিয়মানুযায়ী হবে, দিনের ভোট দিনেই হবে। ভোট রাতে হবে না-এটা স্পষ্ট উচ্চারণে বলতে চাই। আমাদের উনি (কমিশনার আনিছুর রহমান) স্পষ্ট করে বলতে চেয়েছেন, দিনের ভোট দিনেই হবে।

এক প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, 'মাত্র পাঁচ-সাতদিন আগে চিঠি দিয়ে সকলকে জানালাম- ইভিএম নিয়ে আমারা কোনো সিদ্ধান্তে উপনীত হইনি, কোনো চাপের মুখে আমরা মাথানিচু করছি না। আমরা যদি ১০ মিলিয়ন ডলার ঘোষণাই করে দিই, তাহলে ইয়ে (পর্যালোচনা) হবে কেন? আমরা এখনও সিদ্ধান্ত নেইনি।' ইভিএম নিয়ে বক্তব্য আসার পর বিএনপি নেতাদের সমালোচনাকেও ইতিবাচকভাবে দেখেন বলে জানান সিইসি।

সংবাদ সম্মেলনে নির্বাচন কমিশনার আনিছুর রহমানকে প্রশ্ন করা হলেও তিনি সাংবাদিকদের কোনো প্রশ্নের জবাব দেননি। কোনো বিষয়ে কোনো কথাও বলেননি।