বাংলাদেশের সকল ইউনিয়ন পরিষদের সামনে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল স্থাপন করার সরকারি নির্দেশনাকে 'আত্মঘাতী' সিদ্ধান্ত বলে মনে করছেন জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জেএসডি) সভাপতি আ স ম আবদুর রব।

তিনি বলেন, গণবিরোধী অবস্থান নিয়ে সরকার অবৈধ ক্ষমতাকে ধরে রাখার লক্ষ্যে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও বঙ্গবন্ধুকে অপব্যবহার করছে। এর ফলে সরকার পতনের পর সরকার বিরোধী ক্ষোভ বঙ্গবন্ধুকে লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত করতে পারে। তা হবে মুক্তি সংগ্রাম ও সমগ্র জাতির জন্য চরম অসম্মানজনক ও বেদনাদায়ক।

বুধবার এক বিবৃতিতে তিনি আরো বলেন, রাজনৈতিক নিপীড়ন অব্যাহত রেখে এবং গণমানুষের কণ্ঠ রোধ করে ভাস্কর্য স্থাপন করলেই বঙ্গবন্ধু চিরস্থায়ী হবে বা তার অস্তিত্ব সুনিশ্চিত হবে- সরকারের এই ধারণা একেবারেই বাস্তবতা বিবর্জিত। সরকার পরিবর্তনের পর বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল সম্মানজনকভাবে সুরক্ষিত বা অক্ষত রাখার প্রশ্নটি চরম ঝুঁকিতে পড়বে।

আ স ম রব বলেন, সরকার ক্ষমতা থাকা অবস্থায় কয়েক জায়গায় বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল বা ভাস্কর্য ভাঙচুরের ঘটনা এবং পুলিশ প্রহরায় বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল রক্ষা কোনক্রমেই মর্যাদাপূর্ণ নয়। বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে সরকারের অপরাজনীত জনগণের মনন থেকে বঙ্গবন্ধুকে বিচ্ছিন্ন করে ফেলেছে। তাই বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে প্রতিনিয়ত বাড়াবাড়ি এবং মাতামাতি করার সরকারি পরিকল্পনা পরিত্যাগ করার জন্য আহ্বান জানাচ্ছি।