অর্থ পাচার ও অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে ভারতে গ্রেপ্তার প্রশান্ত কুমার (পিকে) হালদারসহ ১০ জনকে হাজির করতে গেজেট বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। আগামী ৭ জুলাইয়ের মধ্যে বিজি প্রেসকে এই গেজেট বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করতে বলা হয়েছে।

ঢাকার মহানগর বিশেষ জজ আদালতের বিচারক কেএম ইমরুল কায়েশ বুধবার এই আদেশ দেন।

বিজ্ঞপ্তি জারি হওয়া অপর আসামিরা হলেন- পিকে হালদারের মা লিলাবতী হালদার, পূর্ণিমা রানী হালদার, উত্তম কুমার মিস্ত্রি, অমিতাভ অধিকারী, প্রিতিশ কুমার হালদার, রাজিব সোম, সুব্রত দাস, অনঙ্গ মোহন রায় ও স্বপন কুমার মিস্ত্রি।

গত ২৭ মার্চ তাদের বিরুদ্ধে দুদকের চার্জশিট গ্রহণ করে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির আদেশ দেন। এরপর বুধবার পরোয়ানা তামিল সংক্রান্ত প্রতিবেদন দাখিলের পর গেজেট বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের আদশ দেন বিচারক।

এর আগে পিকে হালদারসহ ১৪ আসামির বিরুদ্ধে চার্জশিট দাখিল করে দুদক। চার্জশিটভুক্ত অপর চার আসামি গ্রেপ্তার হয়ে কারাগারে আছেন। এদিন তাদের আদালতে হাজির করা হয়। গ্রেপ্তার ওই চার আসামি হলেন- পিকে হালদারের বান্ধবী অবন্তিকা বড়াল, শংখ বেপারী, সুকুমার মৃধা ও অনিন্দিতা মৃধা।

২০২০ সালের ৮ জানুয়ারি প্রায় ২৭৫ কোটি টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে পিকে হালদারের বিরুদ্ধে দুদকের ঢাকা সমন্বিত জেলা কার্যালয়ে মামলাটি দায়ের করেন সংস্থাটির সহকারী পরিচালক মামুনুর রশীদ চৌধুরী।

গত ১৪ মে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ থেকে পি কে হালদারকে গ্রেপ্তার করেছে দেশটির এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি)। বর্তমানে দ্বিতীয় দফায় ১০ দিনের রিমান্ডে আছেন পি কে হালদার।