গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় বোমা পুঁতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হসিনাকে হত্যাচেষ্টা ও রমনা বটমূলে বোমা হামলা মামলার মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি জঙ্গি সংগঠন হরকাতুল জিহাদ (হুজি)-র  প্রতিষ্ঠাতা আমির মুফতি আব্দুল হাইকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব)।  বুধবার নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

র‍্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন গণমাধ্যমে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

গ্রেপ্তার আব্দুল হাইয়ের বিষয়ে আগামীকাল বৃহস্পতিবার সংবাদ সম্মেলনে বিস্তারিত জানানো হবে বলে জানিয়েছে র‌্যাব।

প্রসঙ্গত, ২০০০ সালের ২০ জুলাই গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সমাবেশস্থলের পাশে ৭৬ কেজি ওজনের বোমা পুঁতে রাখা হয়। শেখ লুৎফর রহমান মহাবিদ্যালয়ের উত্তর পাশের একটি চায়ের দোকানের পেছনে এ বোমা বিস্ফোরণের মাধ্যমে শেখ হাসিনাকে হত্যার পরিকল্পনা করা হয়েছিল। সেই পরিকল্পনার সঙ্গে মুফতি আব্দুল হাই জড়িত ছিলেন।

এছাড়া ২০০১ সালে রাজধানীর রমনার বটমূলে ছায়ানটের বৈশাখ বরণের অনুষ্ঠানে বোমা হামলা চালিয়েছিল জঙ্গিরা। ওই হামলায় ১০ জন নিহত হয়। সেদিনই নীলক্ষেত পুলিশ ফাঁড়ির সার্জেন্ট অমল চন্দ্র চন্দ রমনা থানায় হত্যা ও বিস্ফোরক আইনে দুটি মামলা করেন। দুই মামলায় নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন হরকাতুল জিহাদ (হুজি)-র শীর্ষ নেতা মুফতি আব্দুল হান্নানসহ ১৪ জঙ্গিকে আসামি করা হয়। এ আসামিদের একজন আবদুল হাই।

এ দুটি ছাড়া আব্দুল হাই আরও একাধিক মামলায় যাবজ্জীবন দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি বলে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারীবাহিনী সূত্রে জানা গেছে।