যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশি শিক্ষার্থী প্রতিবছর বৃদ্ধি পাচ্ছে বলে জানিয়েছেন দেশটির রাষ্ট্রদূত পিটার হাস। তিনি বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রে উচ্চশিক্ষা গ্রহণের জন্য বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের সবসময় উৎসাহিত ও সহযোগিতা করা হচ্ছে। 

আজ বৃহস্পতিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামানের সঙ্গে সাক্ষাৎকালে তিনি এ কথা বলেন। ঢাবি উপাচার্যের অফিসে এই সাক্ষাৎ হয়। এ সময় দূতাবাসের কর্মকর্তা শারলিনা হুসেইন-মরগান, রায়হানা সুলতানা এবং ঢাবি’র রেজিস্ট্রার প্রবীর কুমার সরকার ও জনসংযোগ দফতরের পরিচালক মাহমুদ আলম উপস্থিত ছিলেন।

সাক্ষাৎকালে রাষ্ট্রদূত ও ঢাবি উপাচার্য পারস্পরিক স্বার্থ-সংশ্লিষ্ট বিষয়াদি নিয়ে আলোচনা ও মতবিনিময় করেন।

এ সময় উপাচার্য মো. আখতারুজ্জামান রাষ্ট্রদূতকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণা কার্যক্রম এবং ইতিহাস, ঐতিহ্য ও সংস্কৃতি সম্পর্কে অবহিত করেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সবসময় নৈতিক, অসাম্প্রদায়িক, মানবিক ও গণতান্ত্রিক মূল্যবোধের চর্চা হয় উল্লেখ করে উপাচার্য বলেন, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষা ও গবেষণা কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। দেশ ও জাতির চাহিদা বিবেচনায় নিয়ে এই বিশ্ববিদ্যালয় দক্ষ ও যোগ্য গ্র্যাজুয়েট তৈরি করে চলছে। বিভিন্ন পেশায় নিয়োজিত থেকে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্র্যাজুয়েটরা দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে চলছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে যুক্তরাষ্ট্রের অনেক বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে যৌথ শিক্ষা ও গবেষণা কার্যক্রম নিয়ে সমঝোতা স্মারক রয়েছে বলে উপাচার্য উল্লেখ করেন।

এ সময় উপাচার্য মো. আখতারুজ্জামান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আসার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূতকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান।