ফরিদপুরের ভাঙ্গায় নিখোঁজের পরদিন নুপুর রায় (২৬) নামে এক নারীর মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বুধবার সন্ধ্যায় পৌরসভার রায়পাড়া সদরদী গ্রামের একটি পাটক্ষেত থেকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়।

নিহত নুপুর পৌরসভার রায়পাড়া সদরদী গ্রামের কার্তিক রায়ের স্ত্রী। তিনি স্থানীয় একটি এনজিওর মাঠকর্মী ছিলেন।

স্থানীয়রা জানায়, বুধবার বিকেলে গ্রামের শিশুরা মাঠে ফুটবল খেলছিল। ফুটবলটি পাশের একটি পাটক্ষেতে চলে যায়। এ সময় বল খুঁজতে পাটক্ষেতে যায় শিশুরা। সেখানে একটি মরদেহ দেখতে পায় তারা। পরে খবর পেয়ে পুলিশ এসে মরদেহ উদ্ধার করে।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার সকালে অফিসের উদ্দেশে বাড়ি থেকে বের হয় নুপুর। বিকেল গড়িয়ে সন্ধ্যা পার হলেও বাড়িতে না ফেরায় খোঁজাখুঁজি করেন পরিবারের সদস্যরা। খোঁজ না পেয়ে রাতে ভাঙ্গা থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করে পরিবার। পরদিন বিকেলে পাশের একটি পাটক্ষেতে নুপুরের মরদেহ পড়ে থাকার খবর পায় পরিবারের লোকজন।

নিহতের শাশুড়ি মায়া রানী বলেন, নুপুর সাত মাসের অন্তঃসত্ত্বা ছিল। আমি এ হত্যার বিচার চাই।

ফরিদপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ভাঙ্গা সার্কেল) ফাহিমা কাদের চৌধুরী সমকালকে জানান, মঙ্গলবার রাতে নুপুরের নিখোঁজ সংক্রান্ত একটি জিডি করে তার পরিবার। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, ধর্ষণের পর নুপুরকে হত্যা করা হয়েছে। তদন্ত শেষে বিস্তারিত জানা যাবে।