পটুয়াখালীর দশমিনায় অনিয়মের অভিযোগ করতে এসে হামলার শিকার হয়েছেন সিকদাড়িয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য জহির মেলকার। রোববার দুপুরে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে। তাঁকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

শিক্ষকের দাবি, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) মো. রবিউল ইসলাম এ ঘটনা ঘটিয়েছেন।

প্রধান শিক্ষক অভিযোগ করেন, দুর্যোগ ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের আওতায় সিকদাড়িয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে সুমন সরদার বাড়ি পর্যন্ত এক কিলোমিটার ইটের সড়ক নির্মাণ চলছে। এ কাজে অনিয়মের অভিযোগ নিয়ে গতকাল দুপুরে প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয়ে আসেন তিনি। এ সময় পিআইওর সঙ্গে এ নিয়ে কথা-কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে তাকে কিলঘুষি দেন পিআইও।

সিকদাড়িয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি মো. মনিরুজ্জামান বলেন, 'পিআইও সরকারি কর্মচারী হয়ে একজন শিক্ষকের গায়ে হাত তুলতে পারেন না।'

পিআইওর বিচার দাবি করেছেন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি ও বাংলাবাজার বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কাজী আনোয়ার হোসেন। তিনি বলেন, 'শিক্ষক সমাজের পক্ষ থেকে বৃহত্তর আন্দোলন কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে।'

প্রধান শিক্ষককে মারধর করার অভিযোগ মিথ্যা দাবি করেছেন মো. রবিউল ইসলাম। তিনি বলেন, অভিযোগ করতে এসে তিনি (শিক্ষক) উত্তেজিত হয়ে অফিস তছনছ করার হুমকি দেন এবং তার শার্টের কলার ধরেন। তিনি জুতা ছুড়ে মারেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মহিউদ্দিন আল হেলাল জানান, উভয় পক্ষ তাঁর কাছে অভিযোগ করেছে। এ বিষয়ে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।