কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় (কুবি) সংলগ্ন এলাকায় বেসরকারি চ্যানেল একাত্তর টেলিভিশনের গাড়ি ভাঙচুরের ঘটনায় ছাত্রলীগ নেতাকে সাময়িক বহিষ্কার করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। মঙ্গলবার (১৪ জুন) বিশ্ববিদ্যালয়ের ডেপুটি রেজিস্ট্রার মো. আমিরুল হক চৌধুরী স্বাক্ষরিত এক অফিস আদেশে বিষয়টি জানানো হয়।

একই ঘটনায় ছাত্রলীগ থেকেও তাকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। বহিষ্কৃত শিক্ষার্থী শাখা ছাত্রলীগের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের দপ্তর সম্পাদক।

বিশ্ববিদ্যালয়ের অফিস আদেশে বলা হয়, ১৩ জুন বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল ফটকের সামনে একাত্তর টেলিভিশনের গাড়ি ভাঙচুরের সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের লোক প্রশাসন বিভাগের স্নাতকোত্তর ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী নূর উদ্দীন হোসাইন জড়িত থাকার বিষয়ে প্রক্টরিয়াল বডির প্রাথমিক তদন্ত রিপোর্ট কর্তৃপক্ষ কর্তৃক অনুমোদিত হওয়ায় তাকে সাময়িকভাবে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

ডেপুটি রেজিস্ট্রার স্বাক্ষরিত পৃথক আরেকটি অফিস আদেশে এ ঘটনার অধিকতর তদন্ত পূর্বক প্রতিবেদন প্রদান করার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড মোহাম্মদ হুমায়ুন কবিরকে আহ্বায়ক করে ছয় সদস্যবিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে।

কমিটির অন্যান্য সদস্যরা হলেন- সামজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন এন এম রবিউল আউয়াল চৌধুরী, শিক্ষক সমিতির সভাপতি ড দুলাল চন্দ্র নন্দী, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের প্রাধ্যক্ষ ড. মোকাদ্দেস-উল-ইসলাম বিদ্যুৎ এবং সিন্ডিকেট সদস্য অধ্যাপক ড. মুহ. আমিনুল ইসলাম আকন্দ। কমিটিতে সদস্য সচিব করা হয়েছে বিশ্বিবদ্যালয়ের প্রক্টর (ভারপ্রাপ্ত) কাজী ওমর সিদ্দিকীকে।

একই ঘটনায় সোমবার রাতে শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ইলিয়াস হোসেন সবুজ এবং সাধারণ সম্পাদক রেজাউল ইসলাম মাজেদ স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে শেখ মুজিবুর রহমান হলের দপ্তর সম্পাদক মুহা. নূর উদ্দিন হোসাইনকে অব্যাহতি দিয়ে কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের নিকট বহিষ্কারের জন্য সুপারিশ করা হয়েছে।

এর আগে সোমবার রাত সাড়ে ৯ টার দিকে কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন নিয়ে পেশাগত দায়িত্ব পালনে বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় গাড়ি নিয়ে আসেন চ্যানেল টোয়েন্টিফোর, নিউজ টোয়েন্টিফোর, একুশে টিভি ও একাত্তর টিভির সংবাদকর্মীরা। এ সময় ক্যাম্পাসের প্রধান ফটকে গাড়িগুলো পার্কিং করেন তারা। তবে কয়েকজন এসে একাত্তর টিভির গাড়ি বিশ্ববিদ্যালয়ের ফটক থেকে সরাতে বললে গাড়িটি ফটকের পাশেই এটিএম বুথের সামনে রাখেন গাড়িচালক। এর কিছুক্ষণ পরই কয়েকজন এসে গাড়িটি ভাঙচুর করেন।