কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ২৪ নম্বর ওয়ার্ডের ভোটারদের টাকা দিয়ে প্রভাবিত করার অভিযোগ উঠেছে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় (কুবি) শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ইলিয়াস হোসেন সবুজের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্য ইলিয়াসকে পুলিশের গাড়িতে তোলা হলে শাখা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা এসে তাকে ছিনিয়ে নেন। 

বুধবার দুপুর ১টার দিকে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন শালবন বিহার প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে।

ঘটনার সময় ওই কেন্দ্রে দায়িত্বরত কুমিল্লা জেলার সহকারী কমিশনার (নেজারত) মো. জিয়াউর রহমান বলেন, ভোটারদের টাকা দেওয়ার অভিযোগে ইলিয়াসকে ডেকে কথা বলতে চাই আমরা। এর মাঝেই ছাত্রলীগের ছেলেরা এসে তাকে নিয়ে যায়। তার পকেটে প্রায় ৭০ হাজার টাকা পেয়েছিলাম।

তিনি আরও বলেন, তবে ইলিয়াস হোসেন সবুজ এগুলো ছাত্রদের মিল চালানোর টাকা বলে দাবি করেছেন।

এদিকে অভিযোগের বিষয়ে ইলিয়াস হোসেন সবুজ বলেন, আমি কর্মীদের খাওয়ানোর জন্য টাকা নিয়ে বেরিয়েছিলাম। ক্যাম্পাস গেটে গিয়ে সৌদিয়া (কোটবাড়িতে অবস্থিত রেস্টুরেন্ট) থেকে খাবার আনার জন্য লোক খুঁজছিলাম। তা ছাড়া আমি ছাত্রলীগের সভাপতি হিসেবে আমার কাছে সবসময় ২০-৩০ হাজার টাকা থাকতেই পারে। আমি কোনো ভোটারকে টাকা দিইনি এবং ভোটকেন্দ্রের আশেপাশেও যাইনি।

পরে ইলিয়াসকে গাড়িতে তোলার ঘটনার মীমাংসা করার জন্য ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা কুমিল্লার সার্কিট হাউসে যান। 

সেখানে আলাপ-আলোচনা শেষে কুমিল্লা জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসান বলেন, আমাদের কাছে একটি ভুল তথ্য এসেছিল। আমরা শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলেছি। এরপরও যদি তারা কোনো লিখিত অভিযোগ দেয়, আমরা সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেব।