সীতাকুণ্ডের বিএম কন্টেইনার ডিপোতে ভয়াবহ বিস্ফোরণে শ্রমিক  হতাহতের জন্য দায়ী মালিকসহ সংশ্লিষ্ট সবার শাস্তি এবং হতাহতদের ক্ষতিপূরণ ও সুচিকিৎসার দাবিতে কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের উপমহাপরিদর্শক বরাবর স্মারকলিপি দিয়েছেন চট্টগ্রাম শ্রমিক কর্মচারী ঐক্য পরিষদের নেতারা। 

বুধবার দুপুরে এই স্মারকলিপি দেন তারা। 

স্মারকলিপিতে তারা বলেন, আমরা মনে করি কন্টেইনার ডিপোগুলোর নিরাপত্তা ঘাটতি নিরূপণের জন্য একটি উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন তদন্ত কমিটি গঠন করতে হবে। উক্ত কমিটির রিপোর্টের ভিত্তিতে কন্টেইনার ডিপোগুলোর নিরাপত্তা সংক্রান্ত বিষয়ে একটি জাতীয় নীতিমালা প্রণয়ন করে সে অনুযায়ী কন্টেইনার ডিপোগুলো পরিচালনার উদ্যোগ নেওয়ার লক্ষ্যে দ্রুত উদ্যোগ নিতে হবে। 

ডিপো মালিকসহ সংশ্লিষ্ট সরকারি দপ্তরের দায়ী সব কর্মকর্তাদেরও শাস্তি প্রদানের দাবি জানান তারা। 

তারা আরও বলেন, আইএলও কনভেনশন ১২১ অনুসরণ করে দুইজন নিহত জাহাজ ভাঙা শ্রমিকসহ কন্টেইনার বিস্ফোরণে নিহত সব শ্রমিকের পরিবারকে আজীবন আয়ের সমপরিমাণ ক্ষতিপূরণ প্রদান করতে হবে। আর আহতদের চিকিৎসাকালীন সবেতন ছুটিসহ সুচিকিৎসা নিশ্চিত করতে হবে। যদি আহতদের মধ্যে কেউ যদি স্থায়ী পঙ্গু হয়ে যায় তাদের ক্ষেত্রে আজীবন আয় এবং ভোগান্তি হিসাব করে তার সমপরিমাণ টাকা ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। কেউ আংশিক পঙ্গু হলে তাদের পুনর্বাসনসহ অঙ্গহানি বিবেচনায় নিয়ে যথাযথ ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। 

নিরাপত্তার স্বার্থে চট্টগ্রাম মহানগর এবং আবাসিক এলাকা সংলগ্ন সকল কন্টেইনার ডিপো দ্রুত স্থানান্তর করার উদ্যোগ নেওয়ার দাবি জানানো হয় স্মারকলিপিতে।  

স্মারকলিপি প্রদানের সময় উপস্থিত ছিলেন— চট্টগ্রাম শ্রমিক কর্মচারী ঐক্য পরিষদের (স্কপ) চট্টগ্রামের যুগ্ম সমন্বয়ক জাতীয় শ্রমিক লীগের সহ-সভাপতি মু. শফর আলী, জাতীয়তাবাদী শ্রমিক দলের চট্টগ্রাম বিভাগীয় সভাপতি শ্রমিক নেতা এএম নাজিম উদ্দিন, টিইউসি কেন্দ্রীয় কমিটির সংগঠক ফজলুল কবির মিন্টু, বিএলএফ এর নুরুল আবছার ভূঁইয়া, আবু আহমেদ, বিএফটিউসি চট্টগ্রাম বিভাগীয় যুগ্ম সম্পাদক রিজওয়ানুর রহমান খান, সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্টের নেতা মহিন উদ্দিন, ট্রেড ইউনিয়ন সংঘের নেতা  মো. মামুন প্রমুখ।