দেশের সকল মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে কিশোর-কিশোরী ক্লাব হবে। দেশব্যপী পুষ্টিকার্যক্রমের অংশ হিসেবে এ উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে। আগামী ৩০ মের মধ্যে প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে এই ক্লাব গঠনের জন্য নির্দেশনাও দেয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর থেকে কিশোর-কিশোরী ক্লাব গঠনের নির্দেশনা দিয়ে প্রত্যেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে চিঠি দেওয়া হয়েছে।

চিঠিতে বলা হয়, মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ৬ষ্ঠ থেকে ১০ম শ্রেণি পর্যন্ত প্রতিটি শ্রেণি থেকে ৬ জন করে মোট ৩০ জন এবং উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে চার থেকে পাঁচ জন করে মোট ৩০ জন শিক্ষার্থী নিয়ে কিশোর-কিশোরী ক্লাব গঠন করতে হবে।

এক্ষেত্রে বিদ্যালয়টি কো-এডুকেশন হলে ৩০ জন সদস্যদের অর্ধেক মেয়ে এবং অর্ধেক ছেলে হতে হবে। এই কিশোর-কিশোরী ক্লাবের মাধ্যমে সকল মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পর্যায়ে সকল ছাত্র-ছাত্রীদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করে স্বাস্থ্য, পুষ্টি ও অন্যান্য সেবা প্রদান করা হবে। এছাড়া ক্লাব পরিচালনার জন্য স্টুডেন্ট ক্যাবিনেট সদস্যদের মধ্য থেকে সম্ভব হলে দুইজন (একজন মেয়ে ও একজন ছেলে) ক্লাব লিডার নির্বাচন করতে হবে।

চিঠিতে আরও বলা হয়েছে, স্বাস্থ্য, পুষ্টি ও অন্যান্য সেবামূলক কার্যক্রম বাস্তবায়নে ক্লাবের সদস্যদের সহায়তার জন্য প্রধান শিক্ষক ২ জন গাইড শিক্ষক একজন মহিলা ও একজন পুরুষ শিক্ষক নির্বাচন করবেন। ২ জন গাইড শিক্ষক বিজ্ঞান / কৃষি  শিক্ষা/ শরীরচর্চা / গার্হস্থ্য বিজ্ঞান শিক্ষকগণের মধ্য থেকে নির্বাচন করা যেতে পারে। গাইড শিক্ষক ক্লাবের দেখভাল করবেন।