সিলেট-সুনামগঞ্জে ভয়াবহ বন্যা পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হলেও তাতে ‘সন্তুষ্ট নন’ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি প্রশাসনকে সতর্ক থাকার নির্দেশ দিয়েছেন।

সোমবার মন্ত্রিসভা বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী এ নির্দেশনা দেন। প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে তার কার্যালয়ে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠক শেষে সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম এক ব্রিফিংয়ে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার কথা সাংবাদিকদের জানান।

তিনি বলেন, বন্যা পরিস্থিতির ক্রমোন্নতিতে সন্তুষ্ট না হয়ে দেশে নতুন করে আরও বন্যা আশঙ্কায় প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্টদের প্রস্তুত থাকার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। 

খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, ভারতের আসামে বন্যা আরও বাড়তে পারে। এজন্য কিশোরগঞ্জ ও নীলফামারীসহ সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসনকে সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, কৃষির ক্ষয়ক্ষতির বিষয়ে কৃষিমন্ত্রীকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলেছেন প্রধানমন্ত্রী।

সোমবার আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ও প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী বিপ্লব বড়ুয়া গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, আগামী মঙ্গলবার (২১ জুন) সিলেটের বন্যাকবলিত অঞ্চল পরিদর্শনে যাবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। 

তিনি জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হেলিকপ্টারে বন্যাকবলিত এলাকায় যাবেন। তিনি সিলেট, সুনামগঞ্জ ও নেত্রকোণার বন্যাকবলিত এলাকা পরিদর্শন করবেন। এসময় সিলেট বিভাগের সাংগঠনিক দায়িত্বপ্রাপ্ত কেন্দ্রীয় আ. লীগ নেতারা উপস্থিত থাকবেন।

স্মরণকালের ভয়াবহ বন্যার কবলে পড়েছেন সিলেট ও সুনামগঞ্জবাসী। সিলেটের পাঁচটি উপজেলার ২০টি শহর পানিতে নিমজ্জিত অবস্থায় রয়েছে।

উজানের পাহাড়ি ঢল, টানা ভারী বর্ষণ ও ভারতের মেঘালয় থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে বন্যা পরিস্থিতি ক্রমশ বিপজ্জনক হচ্ছে। এদিকে সিলেটের প্রায় ৮০ শতাংশ এবং সুনামগঞ্জের ৯০ শতাংশের বেশি এলাকা পানিতে ডুবে গেছে। সিলেট-সুনামগঞ্জ ছাড়াও কিশোরগঞ্জ, নেত্রকোণা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, গাইবান্ধা, কুড়িগ্রামেবন্যা পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে।