বরগুনায় এক নারী ব্যবসায়ীকে এসিড নিক্ষেপের অভিযোগ উঠেছে প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে। সোমবার রাত বারোটার টার দিকে বরগুনা সদর উপজেলার আয়লা পাতাকাটা ইউনিয়নের বৈকালিন বাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় একজনকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে স্থানীয়রা।

ভুক্তভোগী ওই নারীর নাম পারভিন বেগম (৩০)। তিনি একই এলাকার শাহজাহান মিয়ার মেয়ে। বৈকালিন বাজারে একটি চায়ের দোকান রয়েছে তার।

এসিড নিক্ষেপের শিকার নারীর স্বজনদের সূত্রে জানা যায়, সোমবার রাতে ভাড়ায় চালিত মোটরসাইকেল যোগে বরগুনা থেকে বৈকালীন বাজারে আসেন পারভিন। এ সময় দুটি মোটরসাইকেলে ৪-৫ জন লোক এসে তাকে এসিড নিক্ষেপ করে পালিয়ে যায়।  পরে স্থানীয়রা পারভিনকে উদ্ধার করে বরগুনা সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। তার অবস্থা গুরুতর হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় পাঠায় । এ ঘটনায় এক মোটরসাইকেলের চালককে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে স্থানীয়রা।

ভুক্তভোগী নারীর বাবা শাহজাহান মিয়া বলেন, পাশ্ববর্তী লেমুয়া এলাকার বশির, নজরুল নাসিরসহ বেশ কয়েকজনের সঙ্গে বিরোধ ছিলো আমাদের। পূর্ব এই বিরোধের জেরে রোববার রাতে পারভিনের দোকানে হামলা চালায় নাসির, বশির ও নজরুলরা। পরদিন এ ঘটনার বিচার চাইতে স্থানীয় গণ্যমান্যদের কাছে গেলে তারা পারভিনের ‌ওপর আরো ক্ষিপ্ত হয়। তার দাবি, অভিযুক্তরাই তার মেয়েকে এসিড মেরেছে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য লাইলী বেগম বলেন, এসিড নিক্ষেপের পর পারভিনের চিৎকারে ছুটে যান স্থানীয়রা। এ সময় ঘটনাস্থল থেকে কামাল নামের একজনকে ধরে ফেলেন তারা। পরে ৯৯৯ এ ফোন করে জানালে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে কামালকে আটক করে। আটক কামালের বাড়ি গাবতলী গ্রামে। তিনি ভাড়ায় চালিত মোটরসাইকেল চালক।

বরগুনা থানার ওসি আলী আহম্মেদ বলেন, ঘটনা জানার সঙ্গে সঙ্গে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে পুলিশ। ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে একজনকে আটক করা হয়েছে। অভিযোগ অনুযায়ী পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

তিনি আরও বলেন, জমিজমা নিয়ে বিরোধের জেরে এ ঘটনা বলেছে বলে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে। তবে ওই নারীকে এসিড না অন্য কোনো কিছু নিক্ষেপ করা হয়েছে তা চিকিৎসকের সাথে আলোচনা সাপেক্ষে নিশ্চিত করা যাবে।