ডিজিটাল যুগের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় শিক্ষার ডিজিটাল রূপান্তরের দায়িত্ব রাষ্ট্রকে নিতে হবে বলে মন্তব্য করেছে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার। 

তিনি বলেন, শিক্ষা মৌলিক অধিকার এবং এটি প্রতিষ্ঠার দায়িত্ব রাষ্ট্রের। শিক্ষার ডিজিটাল রূপান্তরে ডিজিটাল সংযোগ ও মানসম্মত কনটেন্ট অপরিহার্য। ডিজিটাল কনটেন্ট মানে পাঠ্যাসূচির পাওয়ার পয়েন্ট উপস্থাপন করা নয়, কনটেন্ট অবশ্য্ই মানসম্মত হতে হবে। 

ফাইভ-জি প্রযুক্তি সম্প্রসারণে মোবাইল অপারেটরগুলো যেন দ্রুত কার্যকর পদক্ষেপ নেয় সেজন্য  বিটিআরসিকে উদ্যোতগ গ্রহণের নির্দেশ দেন তিনি।

মঙ্গলবার ঢাকায় হোটেল সোনারগাঁয়ে বিটিআরসি, এটুআই এবং এলায়েন্স ফর অ্যাফোর্ডেবল ইন্টারনেটের যৌথ উদ্যোনগে আয়োজিত ‘কানেক্টিভিটি ফর এডুকেশনাল ইনস্টিটিউশন্স ফর ব্লেন্ডেড এডুকেশন বাংলাদেশ ব্রডব্যা ন্ড পলিসি ২০২০’ শীর্ষক দিনব্যাসপী কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন মোস্তাফা জব্বার।

তৃণমূল থেকে শুরু করে দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে দ্রুত গতির ইন্টারনেট সুবিধার আওতায় আনার গুরুত্বারোপ করেন টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী। 

মোস্তাফা জব্বার বলেন, ডিজিটাল শিক্ষার জন্য  শিক্ষকদেরও ডিজিটাল উপযোগী দক্ষতা প্রদান করতে হবে। শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ দিয়ে ডিজিটাল শিক্ষা প্রদানের উপযোগী করতে না পারলে শিক্ষার ডিজিটাল রূপান্তর বাস্তবায়ন সম্ভব নয়।  ডিজিটাল শিক্ষা ছাড়া ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার প্রচেষ্টা ফলপ্রসূ হবে না। 

বিটিআরসির চেয়ারম্যানন শ্যা ম সুন্দর সিকদারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে মাধ্যবমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব আবু বকর সিদ্দিক, এটুআইয়ের সিনিয়র পলিসি অ্যাডভাইজর আনীর চৌধুরী এবং এলায়েন্স ফর অ্যাফোর্ডেবল ইন্টারনেটের এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের প্রধান অঞ্জু  মঙ্গল বক্তব্য রাখেন। 

অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বিটিআরসির মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল নাসিম পারভেজ।