চট্টগ্রামে জমির ভুয়া মালিক সেজে ১ কোটি ৬৩ লাখ টাকা আত্মসাতের মামলায় অজয় দাস নামের এক ব্যক্তিকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত। 

আজ মঙ্গলবার চট্টগ্রাম মহানগর দায়রা জজ আদালতে আত্মসমর্পণ করে অজয় জামিনের আবেদন করলে আদালত তাঁকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। অজয় নগরীর কোতোয়ালি থানার পাথরঘাটার জগদীশ চন্দ্র দাশের ছেলে।

২০১৭ সালের ১৯ অক্টোবর দুদকের সহকারী পরিচালক শহীদুল আলম সরকার নগরীর কোতোয়ালি থানায় এ সংক্রান্ত দুটি দুর্নীতির মামলা করেন। দুদকের পিপি মজিবুর রহমান চৌধুরী সমকালকে বলেন, দুই মামলায় ভুয়া মালিক অজয় দাশকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। অন্য আসামিরা পলাতক রয়েছেন।

মামলায় অভিযোগপত্রে বলা হয়, সীতাকুণ্ডে একটি প্রতিষ্ঠানের কারখানা স্থাপনের জন্য ২৫ দশমিক ৫৫ একর ভূমি অধিগ্রহণ করে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের এলএ শাখা। এ ভূমির মালিকানার ভুয়া ওয়ারিশ সনদ, ট্রেড লাইসেন্সসহ ভুয়া কাগজপত্র দেখিয়ে ২০১৪ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি অজয় দাশকে এলএ শাখা থেকে ১ কোটি ৬২ লাখ ৯৭ হাজার ১৫৭ টাকার দুটি চেক দেওয়া হয়। অজয় এ দুই চেকের অর্থ জনতা ব্যাংকের শহীদ হোসেন সোহরাওয়ার্দী সড়ক শাখা থেকে তুলে নেন।

এ মামলার অন্য আসামিরা হলেন- চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের সাবেক ভূমি হুকুম দখল কর্মকর্তা শাহাদাত হোসেন, কানুনগো আবদুল কুদ্দুছ, সার্ভেয়ার শহিদুল ইসলাম মুরাদ, এস এম নাদিম ও চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের রাজস্ব সার্কেল-৪-এর অনুমতিপত্র পরিদর্শক ইকবাল চৌধুরী। গত ৯ জুন চট্টগ্রাম মহানগর দায়রা জজ আদালত তাঁদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন। ২০২১ সালের ১৪ মার্চ আদালতে চার্জশিট দাখিল করে দুদক।