গাইবান্ধার সাঘাটায় শিউলী আকতার পারভীন (২৪) নামে একজনকে হত্যার দায়ে স্বামী সাইফুল ইসলামসহ দুজনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার দুপুরে গাইবান্ধার অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. ফেরদৌস ওয়াহিদ এ রায় দেন। অপর মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি সাইফুল ইসলামের প্রথম স্ত্রীর খালাতো ভাই আবদুল করিম।

এছাড়া অন্য দুই আসামি কুদ্দুস রানা এবং মোছা. কহিনুর বেগম বুলির বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় তাদেরকে বেকসুর খালাস দেওয়া হয়।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, সাঘাটা উপজেলার ওসমানেরপাড়া গ্রামের প্রয়াত আফজাল হোসেন সরকারের মেয়ে শিউলী আকতার পারভীনের সঙ্গে ২০১৫ সালে পার্শ্ববর্তী কামালেরপাড়া গ্রামের প্রয়াত মফিজ উদ্দিন বেপারীর ছেলে সাইফুল ইসলামের বিয়ে হয়। কিন্তু সাইফুলের নানা অপকর্মের কারণে তার দ্বিতীয় স্ত্রী শিউলী আকতারের সঙ্গে প্রায়ই ঝগড়া-বিবাদ লেগে থাকতো। এরই একপর্যায়ে ২০১৭ সালে মাদক মামলায় সাইফুল ইসলাম জেলে যায়। সে সময় শিউলী আকতার বাবার বাড়িতে চলে আসেন। এর কিছুদিন পর সাইফুল জামিনে বেরিয়ে স্ত্রীকে তার বাড়িতে নিয়ে যান। এরপর ওই বছরের ২০ জুলাই তাদের মধ্যে আবারও পারিবারিক কলহ দেখা দিলে সাইফুল ইসলাম তার প্রথম স্ত্রীর ভাই আব্দুল করিমকে সঙ্গে নিয়ে শিউলী আকতার পারভীনকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে হত্যা করেন। হত্যার পর লাশ গুম করার জন্য কামালেরপাড়া ইউনিয়নের বসন্তেরপাড়া গ্রামে একটি ল্যাট্রিনের সেফটিক ট্যাংকে ফেলে দেন তারা। এ ঘটনায় নিহত শিউলীর বড় ভাই আজিজুর রহমান বাদী হয়ে সাঘাটা থানায় পাঁচ জনের নামে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। পরে একই বছরের ৩০ জুলাই পুলিশ ওই সেফটিক ট্যাংক থেকে শিউলীর অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করে।

এ ব্যাপারে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ফারুক আহমেদ প্রিন্স জানান, আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে। দীর্ঘদিন শুনানি শেষে বৃহস্পতিবার বিচারক মামলার রায় ঘোষণা করেন।