নড়াইল সদরের মির্জাপুর ইউনাইটেড ডিগ্রি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ স্বপন কুমার বিশ্বাসকে লাঞ্ছনার ঘটনার অন্যতম আসামি রহমতুল্লাহ বিশ্বাস রনিকে খুলনা থেকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। বুধবার রাতে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত চার জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

এর আগে শিক্ষকের গলায় জুতার মালা দেওয়াসহ শিক্ষকদের তিনটি মোটরসাইকেল পোড়ানো এবং পুলিশের কাজে বাধা দেওয়ার ঘটনায় মির্জাপুর পুলিশ ক্যাম্পের দায়িত্বপ্রাপ্ত উপপরিদর্শক (এসআই) মুরসালিন বাদী হয়ে ১৭০ জনকে আসামি করে গত সোমবার দুপুরে মামলা করেন।

এরই মধ্যে আড়পাড়া গ্রামের মির্জাপুর বাজারের মোবাইল ফোন মেরামতকারী শাওন (২৮), মির্জাপুর গ্রামের অটোচালক রিমন (২২) এবং একই গ্রামের মাদ্রাসা শিক্ষক মনিরুল ইসলামকে (২৭) গত মঙ্গলবার দুপুরে বিভিন্ন এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

পুলিশ জানিয়েছে, ঘটনার পর থেকে পুলিশ ভিডিও ফুটেজ দেখে জড়িতদের আটক করতে তৎপরতা শুরু করে। এরই ধারাবাহিকতায় তথ্যপ্রযুক্তির সাহায্যে ঘটনার অন্যতম আসামি রহমতউল্লাহ রনির অবস্থান নিশ্চিত হয়ে পুলিশ খুলনা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে। এ সময় রনি তার এক আত্মীয়ের বাসায় পালিয়ে ছিলেন।

পুলিশ আরও জানায়,বৃহস্পতিবার রনিকে আদালতে সোপর্দ করে রিমান্ডের আবেদন করা হবে। এ ছাড়া গ্রেপ্তার বাকি তিনজনকে গত মঙ্গলবার জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। বুধবার ওই তিনজনের রিমান্ড আবেদন করা হলে আগামী রোববার শুনানির দিন ধার্য করা হয়।