গায়ের শার্টে ঢাকা ছিল কোমরে থাকা বিদেশি পিস্তল। আইনজীবী ও উপস্থিত সকলের চোখ ফাঁকি দিয়ে পিস্তল নিয়েই আদালতের এজলাসে ঢুকে পড়েন মনসুর আহমেদ। 

একটি বন মামলার আসামি মনসুর লাইসেন্স করা পিস্তল নিয়ে জামিনের জন্য আদালতে হাজির হন। কিন্তু বিচারক তার জামিনের আবেদন না মঞ্জুর করে জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দিলে পিস্তলটি সবার নজরে আসে। এই নিয়ে আদালতে শুরু হয় হৈ চৈ। রোববার দুপুরে গাজীপুর বিজ্ঞ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট বন আদালত -২ এ ঘটনাটি ঘটে।  

জানা যায়, গাজীপুরের জয়দেবপুর থানার পিরুজালি গ্রামের প্রয়াত আব্দুল করিমের ছেলে মনসুর একটি বন মামলার আসামি। জামিন চাওয়ার জন্য লাইসেন্স করা ইতালির তৈরি একটি পিস্তল নিয়ে আদালতের এজলাসে ঢুকেন তিনি। 

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মনসুর নিশ্চিত ছিলেন আদালত তার জামিন মঞ্জুর করবেন। এ কারণে পিস্তলটি হয়তো সঙ্গে নিয়ে আদালতে প্রবেশ করেন। 

গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ কমিশনার জাকির হাসান (উত্তর- অপরাধ ) জাকির হোসেন বলেন, খবর পেয়ে সেখানে দ্রুত পুলিশ পাঠানো হয়। তাৎক্ষণিক পুলিশ অস্ত্রটি তার কাছ থেকে উদ্ধার করে। 

মেট্রোপলিটন পুলিশের সদর থানার এসআই মোশারফ হোসেন বলেন, অস্ত্র উদ্ধারের পর সেটি থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। আর মনসুরকে জেল হাজতে পাঠানো হয়। 

তিনি জানান, আদালতে অস্ত্র নিয়ে প্রবেশ করার ঘটনায় তার বিরুদ্ধে রোববার রাতেই তিনি বাদী হয়ে সদর থানায় সন্ত্রাসবিরোধী আইনে একটি মামলা দায়ের করেছেন।