শ্রদ্ধা আর ভালোবাসায় আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য ও গোপালগঞ্জের মুকসুদপুরের বীর মুক্তিযোদ্ধা মুকুল বোসকে চিরবিদায় জানিয়েছেন এলাকাবাসী। মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৯টায় বর্ষিয়ান আওয়ামী লীগ নেতা মুকুল বোসের মরদেহ মুকসুদপুর সরকারি কলেজ চত্বরে আনা হয়।

সেখানে প্রথমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং সংসদ সদস্য লে. কর্নেল (অব.) মুহাম্মদ ফারুক খানের পক্ষে শ্রদ্ধা জানানো হয়। পরে মুকসুদপুর উপজেলা আওয়ামী লীগ, উপজেলা প্রশাসন, উপজেলা পরিষদ, পৌরসভা, পাক্ষিক মুকসুদপুর সংবাদসহ বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে কফিনে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। এরপর প্রিয় নেতার প্রতি সর্বস্তরের মানুষ শ্রদ্ধা জানান। পরে থানা পুলিশের চৌকস দল গার্ড অব অর্নার প্রদান করে।

এ সময় মুকসুদপুর আওয়ামী লীগের সভাপতি আতিকুর রহমান মিয়া, সম্পাদক রবিউল আলম সিকদার, উপজেলা চেয়ারম্যান কাবির মিয়া,  শিল্পকলা একাডেমির পরিচালক আশরাফুল আলম পপলু, সহকারী কমিশনার (ভূমি) অমিত কুমার সাহা, ওসি (তদন্ত) আমিনুর রহমান, পৌর মেয়র আশরাফুল আলম শিমুল, আওয়ামী লীগ নেতা আশরাফ আলী আশু, শ্যামল বোস, সিরাজুল ইসলাম মিয়া, সাঈদুর রহমান, ছাব্বির খান, জাহিদুর রহমান, হায়দার হোসেন, সমর রায় চৌধূরী মিন্টুসহ আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

পরে মুকুল বোসের মরদেহ নেওয়া হয় মুকসুদপুরের গোহাল টিসিএল উচ্চ বিদ্যালয়ে। সেখানে তার প্রতি সর্বস্তরের মানুষ শ্রদ্ধা জানান। এ বিদ্যালয়ে তিনি পড়াশোনা করেছেন।

এরপর মুকসুদপুরের মনিয়াজোড়া গ্রামের নিজ গ্রামের বাড়িতে নেওয়া হয় মুকুল বোসের মরদেহ। সেখানে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে দুপুরে ঢাকার উদ্দেশে লাশ নিয়ে রওনা হন পরিবারের সদস্যরা। মঙ্গলবার ঢাকায় এ নেতার মরদেহের অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া সম্পন্ন হবে।

প্রসঙ্গত, মুকুল বোস (৬৮) হার্ট ও কিডনি জটিলতা নিয়ে ২ জুলাই ভারতের চেনাই অ্যাপোলা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষনিশ্বাস ত্যাগ করেন। তিনি স্ত্রী, দুই সন্তান, আত্মীয়স্বজন ও অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।