আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কৃষিবিদ আ ফ ম  বাহাউদ্দিন নাছিম বলেছেন, মুক্তিযুদ্ধে ভারতের সহযোগিতা ইতিহাসের পাতায় স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে।

মঙ্গলবার কলকাতা প্রেসক্লাবের নেতৃবৃন্দের সাথে মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে ভারতের জনগণের সঙ্গে সাংবাদিকরাও লড়াইয়ে নেমেছিলেন। কলকাতা প্রেসক্লাব এবং ভারত তথা কলকাতার সাংবাদিকদের অবদান ভোলার নয়। মুক্তিযুদ্ধে ভারতের সহযোগিতা ইতিহাসের পাতায় স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে জনসচেতনতা সৃষ্টিতে কলকাতা প্রেসক্লাবের ভূমিকা অনস্বীকার্য। কলকাতার সাংবাদিকরা যেভাবে সংবাদ সংগ্রহ করে সারা পৃথিবীতে ছড়িয়ে দিয়ে বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে অবদান রেখেছেন তার জন্য কৃতজ্ঞতা জানাই। 

তিনি আরও বলেন, মুক্তিযুদ্ধের সময় সাংবাদিকরা যেভাবে বাংলাদেশের পাশে ছিল, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ যেভাবে এগিয়ে যাচ্ছে সে ক্ষেত্রেও তাদেরকে একইভাবে বলিষ্ঠ ভূমিকা রাখার আহ্বান জানান নাছিম। 

এসময় বাহাউদ্দিন নাছিম বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে কলকাতার দুজন শহীদ সাংবাদিক দীপক বন্দ্যোপাধ্যায় ও সুরজিৎ ঘোষালের প্রতি শ্রদ্ধা জানান।

প্রসঙ্গত সাংবাদিক দীপক বন্দ্যোপাধ্যায় ও সুরজিৎ ঘোষাল ১৯৭০ সালের ২৩ মার্চ বাংলার মানুষের উপর অত্যাচারের প্রকৃত বিবরণ সংগ্রহ করতে খুলনা-যশোর হয়ে ঢাকার উদ্দেশ্যে বেরিয়ে পড়েন। সংবাদ সংগ্রহ শেষে তারা ঢাকা থেকে কুমিল্লা হয়ে আগরতলার সীমান্ত দিয়ে ভারতে প্রবেশ করেন। দ্বিতীয়বার তারা বাংলাদেশে সংবাদ সংগ্রহের জন্য প্রবেশ করলে আর ফিরে আসেননি। 

কলকাতা প্রেসক্লাবের সভাপতি স্নেহাশিস সুর বলেন, কলকাতা প্রেস ক্লাবের সাথে বাংলাদেশের সম্পর্ক মুক্তিযুদ্ধের শুরু থেকেই। এই সম্পর্ক বহমান এবং উত্তরোত্তর আরো দৃঢ় হবে বলে আমরা প্রত্যাশা করি।

এসময় জীবন উৎসর্গকারী দুই সাংবাদিকের মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিচারণ করেন প্রেসক্লাবের বর্ষিয়ান সদস্যরা। মতবিনিময় শেষে প্রেসক্লাবের সাংবাদিকরা বাহাউদ্দিন নাছিমকে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে প্রকাশিত বিভিন্ন পুস্তক উপহার দেন।