রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) সহযোগিতা চেয়েছে বাংলাদেশ। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন বৃহস্পতিবার কম্বোডিয়ার রাজধানী নমপেনে ইউরোপীয় ইউনিয়নের পররাষ্ট্র ও নিরাপত্তা নীতি বিষয়ক শীর্ষ প্রতিনিধি এবং ইউরোপিয়ান কমিশনের ভাইস প্রেসিডেন্ট জোসেপ বোরেল ফন্টেলেস এর সাথে বৈঠক করেছেন। বৈঠকে তিনি রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে তাদের সহযোগিতা চান। 

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে জানানো হয়, বৈঠকে বাংলাদেশে দারিদ্রের হার কমিয়ে আনার অসাধারণ সাফল্যের কথা জানান পরারাষ্ট্রমন্ত্রী। একই সাথে তিনি ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে বাংলাদেশের সংকটের কথাও জোসেপ বোরেল ফন্টেলেসকে অবহিত করেন।

রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনের বিষয়টিও অত্যন্ত জোরালোভাবে বৈঠকে উত্থাপন করে মোমেন বলেন, অনেক প্রচেষ্টার পরেও গত পাঁচ বছরে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন আলোর মুখ দেখেনি।

তিনি বলেন, যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, স্পেন, জাপান, কোরিয়া, ফ্রান্সের মতো দেশগুলোর মিয়ানমারের সাথে অধিকতর বিনিয়োগ ও বাণিজ্য থাকায় তাদের দিক থেকেও রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে মিয়ানমারের উপর চাপ বজায় রাখা প্রয়োজন।

এসময় মিয়ানমারের নাগরিকদের ফিরিয়ে নিতে চাপ প্রয়োগ করার জন্য ইউরোপীয় ইউনিয়নের কার্যকর সমর্থন প্রত্যাশা করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। অন্যথায় মিয়ানমার ও বাংলাদেশ এমনকি সমগ্র অঞ্চলের নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতা বিপন্ন হতে পারে বলেও আশঙ্কা প্রকাশ করেন তিনি।

এছাড়া পররাষ্ট্রমন্ত্রী জোসেপ বোরেল ফন্টেলেসকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানালে তিনি তা সানন্দে গ্রহণ করেন বলে বিবৃতিতে জানানো হয়।