জ্বালানি তেলের বর্ধিত মূল্য প্রত্যাহার না করলে ১৭ আগস্ট প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় অভিমুখে বিক্ষোভ করবে বাম জোটের নেতারা। এছাড়া দেশের সব জেলার ডিসির কার্যালয়ের সামনেও বিক্ষোভ করা হবে বলেও জানিয়েছেন তারা। 

সোমবার বিকেল ৫টার দিকে জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে এক বিক্ষোভ সমাবেশে এই কর্মসূচির ঘোষণা দেন বাম জোট নেতারা। 

সমাবেশে বাংলাদেশের ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগের সম্পাদক মণ্ডলীর সদস্য মোশাররফ হোসেন নান্নুর সভাপতিত্বে বক্তব্য দেন সিপিবি’র সভাপতি কমরেড শাহ আলম, বাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সহকারী সাধারণ সম্পাদক রাজেকুজ্জামান রতন, গণতান্ত্রিক বিপ্লবী পার্টির সম্পাদক মোশরেফা মিশু, বাসদ (মার্কসবাদী) সমন্বয়ক কমরেড মাসুদ রানা, সমাজতান্ত্রিক আন্দোলনের নির্বাহী সভাপতি আব্দুল আলী। সমাবেশ সঞ্চালনা করেন ইউসিএলবি’র কেন্দ্রীয় নেতা নজরুল ইসলাম। 

সমাবেশে বক্তারা বলেন, বিশ্ববাজারে তেলের দাম যখন নিম্নমুখী সে সময় সরকারের এই সিদ্ধান্ত জনগণের ওপর মূল্যবৃদ্ধির বোঝা আরও বাড়াবে। শিল্প, কৃষি, পরিবহন থেকে শুরু করে সকল ক্ষেত্রেই জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির প্রভাব পড়বে। এতে জনজীবনে চরম দুর্দশা নেমে আসবে। সরকারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, গত ছয় মাসে বিপিসি জ্বালানি তেল বিক্রি করে ৮ হাজার কোটি টাকা লোকসান করেছে। কিন্তু বিগত সময়ে বিশ্ববাজারে যখন তেলের দাম কম ছিল সে সময়ে তেল বিক্রি করে সরকার ৪৩ হাজার কোটি টাকা মুনাফা করেছিল। 

তারা সরকারকে এই সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসার আহ্বান জানিয়ে বলেন, আগামী ১৬ আগস্টের মধ্যে বর্ধিত মূল্য প্রত্যাহার করা না হলে ১৭ আগস্ট প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় অভিমুখে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করা হবে।