স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, প্রাথমিকের ২ কোটি ২০ লাখ শিশুকে টিকা দিতে হবে। এজন্য প্রায় ৪ কোটি ৪০ লাখ টিকা লাগবে। ৩০ লাখের মতো টিকা পাওয়া গেছে। বাকি টিকা যুক্তরাষ্ট্র সরকার কোভ্যাক্সের মাধ্যমে দেবে। এই টিকা শিশুদের জন্য বিশেষভাবে তৈরি করা হয়েছে এবং তা খুবই নিরাপদ।

গতকাল বৃহস্পতিবার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে শিশুদের করোনা টিকা প্রদান কর্মসূচি উদ্বোধন অনুষ্ঠানে এ তথ্য জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। এ সময় পরীক্ষামূলকভাবে ৫ থেকে ১১ বছর বয়সী ১৬ জনকে করোনার টিকার প্রথম ডোজ দেওয়া হয়। ২৫ আগস্ট থেকে পুরোদমে টিকা দেওয়া হবে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক আরও বলেন, দেশে করোনার বুস্টার ডোজ টিকা কার্যক্রমে ছেলেদের তুলনায় মেয়েরা পিছিয়ে রয়েছে। প্রথম ও দ্বিতীয় ডোজ গ্রহণের ক্ষেত্রে ছেলে ও মেয়েরা প্রায় সমান থাকলেও অনেক মেয়ে বুস্টার ডোজ নিচ্ছেন না।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব আনোয়ার হোসেন হাওলাদার, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাশার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম, বাংলাদেশে যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত পিটার ডি হাস, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রতিনিধি রাজেন্দ্র বোহরা, ইউনিসেফের প্রতিনিধি শেলডন ইয়েট প্রমুখ।