স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, বেআইনি কাজে জড়িত র‌্যাব সদস্যদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়। মঙ্গলবার যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত পিটার হাস সচিবালয়ে মন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করেছেন। সাক্ষাৎ শেষে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাংবাদিকদের একথা বলেন।

র‌্যাবের ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা উঠিয়ে নেওয়ার সুপারিশ করা হয়েছে জানিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এ সময় বলেন, র‌্যাবের বিষয়ে আমি এও বলেছি, বেশিরভাগ ক্ষেত্রে আমাদের ল’ এনফোর্সমেন্ট এজেন্সি সেলফ ডিফেন্সে গুলি করে থাকে। সেটি যথাযথ হয়েছে কিনা, ঘটনার পরপরই তা নিশ্চিত করার জন্য একজন ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ করা হয়। তিনি (ম্যাজিস্ট্রেট) যদি মনে করেন এটি যথাযথ হয়নি, তাহলে সেই সদস্যকে বিচারের মুখোমুখি হতে হয়। 

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, তিনি (পিটার) বলেছেন, এটা তো তোমরা পাবলিকলি অ্যানাউন্স করো না। আমরা বলেছি, যেগুলো করার সেগুলো আমরা করছি।

আসাদুজ্জামান খান বলেন, র‌্যাবের বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্র বলেছে, যেভাবে র‌্যাবের কাজ করা উচিত ছিল, সেভাবে কাজ করেনি বলেই র‌্যাবের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে। আমরা বলেছি, র‌্যাবের কোনো সদস্য বেআইনি কোনো কাজ করলে তাদের আইনের আওতায় নিয়ে আসা হয়। 

এ ক্ষেত্রে নারায়ণগঞ্জের সাত খুনের মামলায় র‌্যাব সদস্যদের বিচারের কথা রাষ্ট্রদূতের কাছে তুলে ধরেন মন্ত্রী।

যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা থাকায় পুলিশ মহাপরিদর্শক বেনজীর আহমেদ নিউইয়র্কে অনুষ্ঠেয় জাতিসংঘ পুলিশপ্রধান সম্মেলনে যোগ দিতে পারবেন কিনা, তা নিয়ে বিভিন্ন পর্যায়ে আলোচনা হচ্ছে। এ প্রসঙ্গে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আইজিপি আমেরিকা যেতে পারবেন কিনা জানতে চাইলে তিনি (পিটার হাস) বলেছেন, ইউএনের সঙ্গে তাঁদের একটি সমঝোতা রয়েছে। সে অনুযায়ী এটি প্রক্রিয়ায় রয়েছে। সেটি শেষ হয়ে এলে এটি নিশ্চিত করতে পারবেন।

দুই-তিনটি খাতে সহযোগিতার জন্য যুক্তরাষ্ট্র লিখিত প্রস্তাব দিয়েছিল জানিয়ে স্বরাষ্ট্র্রমন্ত্রী বলেন, আমরা খুব শিগগির সমঝোতা স্মারক সই করব, সেটা তাকে (মার্কিন দূত) জানিয়ে দিয়েছি। এখন এগুলো শেষ পর্যায়ে আছে। বাংলাদেশের নিরাপত্তার ক্ষেত্রে সব ধরনের সহযোগিতা দিতে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন রাষ্ট্রদূত।

দেশের বর্তমান আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে পিটার হাস সন্তোষ প্রকাশ করেছেন জানিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ইলেকশন পর্যন্ত এটি (আইনশৃঙ্খলা) ঠিক থাকবে কিনা জানতে চেয়েছেন মার্কিন রাষ্ট্রদূত। আমি বলেছি, প্রধানমন্ত্রীর কমিটমেন্ট আছে, নির্বাচন পর্যন্ত একটি শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় রাখা। এখন অনেক মিছিল-মিটিং হচ্ছে।

রোহিঙ্গা সংকট নিয়েও কথা হয়েছে জানিয়ে আসাদুজ্জামান কামাল বলেন, এ সমস্যা সমাধানে তারা তাদের কণ্ঠস্বর আরও শক্তিশালী করবেন বলে আমরা মনে করি। তারা এ বিষয়ে তাদের যে সহযোগিতা এখন আছে, সেটি অব্যাহত থাকবে বলে আশ্বাস দিয়েছেন।

বরগুনায় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের পুলিশের পেটানো নিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমার কাছে মনে হয়েছে, এতটা বাড়াবাড়ি হওয়া উচিত হয়নি। কার বাড়াবাড়ি, সেটি ইনভেস্টিগেশনে বের হবে। অহেতুক কেন এমন হলো, এটা আইজি সাহেবকে বলা হয়েছে। তিনি ব্যবস্থা নিচ্ছেন।