বাংলাদেশ ফিন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের প্রধান মাসুদ বিশ্বাসকে তলব করেছেন হাইকোর্ট। এ বিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে বুধবার বেলা ১১টায় তাকে সশরীরে আদালতে হাজির হতে বলা হয়েছে।

হাইকোর্টের আদেশের পরেও যথাযথ প্রক্রিয়া অনুসরণ না করে সুইস ব্যাংকে অর্থ পাচার সংক্রান্ত বিষয়ে তথ্য দাখিল করায় তাকে তলব করেছেন হাইকোর্ট।

মঙ্গলবার হাইকোটের বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি কাজী মো. ইজারুল হক আকন্দের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশিদের অর্থ সংক্রান্ত বিষয়ে পাওয়া তথ্য প্রতিবেদন আকারে সোমবার হাইকোর্টে জমা দেয় বাংলাদেশ ফিন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ)। তবে মঙ্গলবার বিচারপতি নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি খিজির হায়াতের দ্বৈত বেঞ্চ বলেন, প্রতিবেদনে কোন সিল এমনকি স্বাক্ষর নেই। এটি দায়সারা কাজ। 

হাইকোর্ট বলেন, এভাবে কাজ করলে আপনারা দুর্নীতি কীভাবে বন্ধ করবেন। দুদকের আইনজীবী হাইকোর্টকে বলেন, এটি কোনভাবে গ্রহনযোগ্য নয়। 

পরে প্রতিবেদনটি গ্রহণ না করে, বিএফআইইউ প্রধানকে তলব করে হাইকোর্ট। এর আগে রাষ্ট্রপক্ষ জানায়, ৬৭ জনের তথ্য চাওয়া হলেও মাত্র ১ জনের বিষয়ে তথ্য দিয়েছে সুইস ব্যাংক।

এর আগে রাষ্ট্রদূতের দেয়া বক্তব্যের প্রেক্ষিতে আদালত স্বপ্রনোদিত হয়ে আদেশ দিয়েছিলেন। আদেশে সুইস ব্যাংকে অবৈধভাবে বাংলাদেশিরা যেসব অর্থ জমা রেখেছেন বা পাচার হয়েছে এ বিষয়ে সরকার বা দুদক কোন পদক্ষেপ নিয়েছে কিনা তা জানাতে নির্দেশ দেন হাইকোর্ট।