আন্তর্জাতিক রাইড শেয়ারিং প্রতিষ্ঠান উবার সেবার মাধ্যমে ২০২১ সালে বাংলাদেশের অর্থনীতিতে ৪ হাজার ৫০০ কোটি টাকা যুক্ত করেছে। উবার নারীদের যাতায়াত সহজ ও নিরাপদ করেছে ৷ এক গবেষণা প্রতিবেদনে এমনটাই দাবি করা হয়েছে।

রোববার গুলশানে একটি হোটেলে প্রতিবেদনটি তুলে ধরে উবার বাংলাদেশ। ওই অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান বলেছেন, দেশে গণপরিবহনের অভাব উবারের সফলতার অন্যতম কারণ। দেশে ট্যাক্সি না থাকায় এই শূন্যতা পূরণ করেছে উবার।

যুক্তরাজ্যভিত্তিক গবেষণা সংস্থা 'পাবলিক ফার্স্ট' প্রতিবেদনটি তৈরি করেছে। উবারের এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলের পাবলিক পলিসি ও গভর্নমেন্ট রিলেশনস বিভাগের সিনিয়র ডিরেক্টর মাইক অরগিল বলেন, এই গবেষণার মাধ্যমে প্রথমবারের মতো চালক, যাত্রী ও অর্থনীতির ওপর উবারের সার্বিক প্রভাব দেখা যাচ্ছে।

পাবলিক ফার্স্টের নীতি ও গবেষণাবিষয়ক পরিচালক জোনাথন ডুপন্ট 'বাংলাদেশের অর্থনীতিতে উবারের প্রভাব' শীর্ষক গবেষণা প্রতিবেদনের বিস্তারিত তুলে ধরেন। তিনি জানান, গবেষণার অংশ হিসেবে অনলাইনে ১ হাজার ২৯ জন গ্রাহকের ওপর জরিপ চালানো হয়। এ ছাড়া ৯৮৭ জন চালক জরিপে অংশ নেন।

অনুষ্ঠানে বলা হয়, নারীর একা যাতায়াতে নিরাপত্তার যে সংকট, তার অনেকটাই দূর করেছে উবার। সবচেয়ে বেশি উবার ব্যবহার হয় অফিসে যাওয়ার ক্ষেত্রে। এ ছাড়া চালকদের ৭৩ শতাংশ উবার অ্যাপ ব্যবহারে সন্তুষ্টি ও ২০ শতাংশ অসন্তুষ্টির কথা জানিয়েছেন।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সিনিয়র সচিব এ এম জিয়াউল আলম, উবারের দক্ষিণ এশিয়ার পরিচালক শিভা শৈলেন্দ্রন, বাংলাদেশ ও পূর্ব এশিয়ার প্রধান মোহাম্মদ আলী আরমানুর রহমান প্রমুখ ৷

এদিকে উবারে যাতায়াত করেন এমন অনেকে সমকালের কাছে অভিযোগ করেন, শুরুর মতো সেবা মিলছে না৷ যাত্রীদের ইচ্ছামতো গন্তব্যে না যেতে চাওয়া, অতিরিক্ত বিল আসা নিয়ে গ্রাহকরা অসন্তুষ্টির কথা জানিয়েছেন ৷ তারা বলেন,এসব সমস্যা প্রতিকারে তেমন কোনো সুযোগ রাখা হয়নি।