কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, বাংলাদেশে খাদ্য সংকট নেই। খাদ্যের জন্য বাংলাদেশে কোনো হাহাকার নেই। না খয়ে কোনো মানুষ মারা যায়নি।

সোমবার বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন (বিএডিসি) ময়মনসিংহের সার্কেল অফিস কাম ট্রেনিং সেন্টারের উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে কৃষিমন্ত্রী এসব কথা বলেন। নগরীর ঢোলাদিয়া এলাকায় প্রায় ৩ কোটি ৬৫ লাখ টাকা ব্যয়ে এই ভবনের নির্মাণকাজ বাস্তবায়ন করে বিএডিসি।

মন্ত্রী বলেন, রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে কিছু খাদ্যের দাম বেড়েছে। এজন্য বাংলাদেশের কিছু মানুষ কষ্টে আছে। তাদের কষ্ট দূর করার জন্য সরকার সরকার ওএমএস, টিসিবিসহ বিভিন্ন খাদ্যবান্ধব কর্মসূচি চালু রেখেছে। সরবরাহ ও চাহিদার উপর ভিত্তি করে সরকার নির্দিষ্ট দাম নির্ধারণ না করে বাজার মনিটরিংয়ের মাধ্যমে চালের দাম নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তাব্যে কৃষিমন্ত্রী আরও বলেন, বিএনপি রাজনৈতিক কর্মসূচি করুক। কিন্তু প্রতিদিন প্রেসক্লাবের সামনে সমাবেশ করলে মানুষ কীভাবে চলাফেরা করবে। প্রতিদিন তো কর্মসূচি দেওয়ার দরকার নাই। আন্দোলনের নামে তারা উস্কানিমূলক কথাবার্তা বলে। পরে অহেতুক পুলিশের ওপর আক্রমণ করে। আন্দোলনের নামে তারা যে মাঠে আছে, এটা দেখানোর একটা অসুস্থ প্রতিযোগিতা চলছে।

তিনি আরও বলেন, টানা তিন মাস আন্দোলন করেও বিএনপি সফল হয়নি। উস্কানিমূলক আচরণ, উশৃঙ্খল কর্মকাণ্ড ও তাণ্ডব চালিয়ে তারা কখনোই আন্দোলনে সফল হতে পারবেনা। যখনই করতে যাবে জনগণ এটাকে বাধা দিবে। তারা রাজপথ দখল করতে আসলে তাদের রাজপথেই মোকাবিলা করার জন্য আওয়ামী লীগ প্রস্তুত আছে।

বিএডিসির ট্রেনিং সেন্টারের উদ্বোধন শেষে নগরীর টাউনহলের অ্যাডভোকেট তারেক স্মৃতি অডিটোরিয়ামে অনুষ্ঠিত ‘বিদ্যমান শস্য বিন্যাসে তৈল ফসলের অন্তর্ভুক্তি এবং ধান ফসলের অধিক ফলনশীল জাত সমূহের উৎপাদন বৃদ্ধি শীর্ষক কর্মশালায় যোগ দেন কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক।

কৃষি মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. সায়েদুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ কর্মশালায় উপস্থিত ছিলেন সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আবেদীন খান তুহিন, কাজীম উদ্দিন আহমেদ ধনু, ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশনের মেয়র ইকরামুল হক টিটু, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট জহিরুল হক খোকা, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মোয়াজ্জেম হোসেন বাবুল, মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এহতেশামুল আলম, বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. মো. শাহজাহান কবীর, বাংলাদেশ পরমাণূ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের (বিনা) মহাপরিচালক ড. মির্জা মোফাজ্জল ইসলাম, ব্রী’র পিএসও ড. মো. ইব্রাহিম, ময়মনসিংহ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত পরিচালক আশরাফ উদ্দিন প্রমুখ।