বরিশালে সাইবার অপরাধী চক্রের দুই সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে মহানগর পুলিশ। এই চক্রের ব্যবহৃত কম্পিউটার, মোবাইল ফোনসহ বিভিন্ন ইলেকট্রনিকস ডিভাইসও জব্দ করা হয়েছে। এক তরুণীর ফেসবুক অ্যাকাউন্ট হ্যাক করে টাকা আদায়ের অভিযোগ তদন্ত করতে গিয়ে তাদের সন্ধান পায় পুলিশ।

সোমবার রাতে পুলিশ নগরীর সাগরদী ও সিঅ্যান্ডবি পুল এলাকায় অভিযান চালিয়ে গ্রেপ্তার করেছে কাওছার খলিফা (২২) ও মাশরাফি হোসেন (২০) নামের ওই দুই তরুণকে। মঙ্গলবার তাঁদের আদালতে সোপর্দ করে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৭ দিনের রিমান্ড আবেদন করা হয়। আদালতের বিচারক মাসুম বিল্লাহ তাদের ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন।

কোতোয়ালি মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সগীর হোসেন জানান, নগরীর রূপাতলী এলাকার এক তরুণীর ফেসবুক আইডি হ্যাক হয় গত জুনে। এরপর তাঁর ছবি বিকৃত করে 'বরিশাল বিবিকিউ' নামে একটি ফেসবুক পেজে প্রকাশ করা হয়। পরে ওই পেজের এডমিনের একজন অনলাইনে ওই তরুণীর সঙ্গে যোগাযোগ করে মোটা অঙ্কের টাকা দাবি করে। অন্যথায় তরুণীর ছবি ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দেয়। পরবর্তীতে ১২ হাজার টাকা দিয়ে ওই তরুণী তাঁর আইডি ফিরে পান।

এ ঘটনার পর ওই তরুণী কোতোয়ালি মডেল থানায় একটি জিডি করেন। তদন্তে নেমে পুলিশ কাওছার ও মাশারাফিকে শনাক্ত করার পর সোমবার রাতে অভিযানে নামে। পরে ওই তরুণীর জিডি নিয়মিত মামলা হিসেবে নথিভুক্ত করে দুই তরুণকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

পুলিশ সূত্র জানায়, বরিশাল নগরে গত কয়েক মাস ধরে 'বরিশাল বিবিকিউ', 'বিবিকিউ টিভিসহ বিভিন্ন নামে কয়েকটি ফেসবুক পেজ নিয়ে বেশ আলোড়ন সৃষ্টি হয়। এসব পেজ দিয়ে তরুণ-তরুণীদের ফেসবুক আইডি হ্যাক করে তাদের জিম্মি করে অর্থ হাতিয়ে নেওয়া হতো। এসব ঘটনা নিয়ে গত ৩-৪ মাসে বরিশাল মহানগরের ৪ থানায় অন্তত এক ডজন জিডি করেছেন ভুক্তভোগীরা।

সূত্র জানায়, নগরের বিভিন্ন বিনোদন কেন্দ্রে ঘুরতে যাওয়া তরুণ-তরুণীদের ছবি তুলে তাতে নানা ধরনের অশ্লীল মন্তব্য জুড়ে দিয়ে পোস্ট করা হতো ওইসব পেজে। এক পর্যায়ে তরুণ-তরুণীদের জিম্মি করে টাকা হাতিয়ে নেওয়া হতো। এসব ঘটনায় শুধু কোতোয়ালি মডেল থানাতেই জিডি হয়েছে ৫টি।

কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি আজিমুল করীম বলেন, বেশ কয়েক মাস ধরেই ফেসবুকের এসব পেজ থেকে প্রতারণা করার অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছিল। একের পর এক অভিযোগ আসার পর পুলিশ এই চক্রটিকে খুঁজে বের করতে মাঠে নামে। প্রযুক্তির সহায়তায় চক্রটির প্রাথমিক তথ্য-উপাত্ত পাওয়ার পর কাওছার ও মাশরাফিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা ডিজিটাল অপরাধের সঙ্গে সম্পৃক্ত থাকার কথা স্বীকার করেছেন। 

আজিমুল করীম বলেন, আশা করি নগরের এই ডিজিটাল অপরাধী চক্রের সবাইকে গ্রেপ্তার করা সম্ভব হবে।