আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৬তম জন্মদিন উপলক্ষে বিজ্ঞান ও তথ্য প্রযুক্তি কর্মশালা এবং জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও শেখ হাসিনার লেখা বই বিতরণ কর্মসূচি পালন করেছে ছাত্রলীগ।

বৃহস্পতিবার সকাল ১১টার দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদ ভবনের অধ্যাপক মোজাফফর আহমেদ চৌধুরী অডিটোরিয়ামে কর্মশালাটি অনুষ্ঠিত হয় এবং দুপুর ১টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সব হলে বই উপহার কর্মসূচি পালন করা হয়।

কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল বলেন, বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার দীর্ঘ ২১ বছর পর ১৯৯৬ সালে রাষ্ট্রক্ষমতায় আসে আওয়ামী লীগ। এ ক্ষেত্রে ছাত্রলীগ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে। জাতির জনক শেখ মুজিবুর রহমানের তৈরি সংবিধানের মূলনীতি অনুযায়ী দেশ চলছে। সেই আদর্শ চর্চায় শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা এগিয়ে আসলে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সঠিক ব্যবহার করা যাবে।

অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশের রূপকার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়নে বিজ্ঞান ও তথ্য-প্রযুক্তি বিষয়ক এই কর্মশালার আয়োজন করা হয়েছে। বঙ্গবন্ধু কন্যার নেতৃত্ব শক্তিশালী করতে কাজ করছে ছাত্রলীগ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পিতার আদর্শ বাস্তবায়নে তৎপর রয়েছেন। তার পরিকল্পনা বাস্তবায়নে সব সময় প্রস্তুত আছে ছাত্রলীগ।

মূল প্রবন্ধ পাঠকালে ছাত্রলীগের বিজ্ঞান বিষয়ক উপসম্পাদক খন্দকার হাবীব আহসান বলেন, একুশ শতকের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় চতুর্থ শিল্প বিপ্লব সফল করতে ডিজিটাল বাংলাদেশের রূপকার দেশরত্ন শেখ হাসিনার বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির উন্নয়নকে কাজে লাগাতে হবে। বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ৫০ লাখ নেতাকর্মীদের শুধু মিছিলে বা সামাজিক কাজে নয়, বরং বৈশ্বিক রাজনীতি ও অর্থনীতির সাথে তাল মেলাতে আরও বেশি বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তিতে কর্মদক্ষ হতে হবে।

অনুষ্ঠানে প্রধান আলোচকের বক্তব্যে বিসিএসআইআর চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. আফতাব আলী শেখ কর্মশালায় ফ্রিল্যান্সিং, এন্টারপ্রেনারশিপ, ব্লকচেইন, এনএফটি, মেটাভার্স, ক্রিপ্টোকারেন্সি, বিদেশে উচ্চ শিক্ষা এবং  কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা বিষয়ের ওপর বক্তব্য দেন।

শেষে কুইজের উপহার হিসেবে ‌'ইতিহাস স্মরণে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ' শীর্ষক বইটি দেওয়া হয়।