আগামী গ্রীষ্ফ্ম মৌসুমে লোডশেডিং হবে না। কয়লাভিত্তিক কয়েকটি বিদ্যুৎকেন্দ্র উৎপাদনে আসছে জানিয়ে বিদ্যুৎ বিভাগ এ কথা বলেছে। গতকাল রোববার সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির বৈঠকে লোডশেডিং পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনার সময় এ কথা বলা হয়।

কমিটির সভাপতি ওয়াসিকা আয়শা খানের সভাপতিত্বে সংসদ ভবনে বৈঠকে সদস্য আবু জাহির, আলী আজগার, নূরুল ইসলাম তালুকদার, খালেদা খানম এবং নার্গিস রহমান অংশ নেন। বৈঠকে বিদ্যুৎ বিভাগের সচিব হাবিবুর রহমান বলেন, কয়লাভিত্তিক রামপাল ও বাঁশখালীর এস আলম গ্রুপের বিদ্যুৎকেন্দ্রের পাশাপাশি ভারত থেকে আমদানি করা বিদ্যুৎ আগামী দুই-তিন মাসে জাতীয় গ্রিডে যুক্ত হবে। বৈঠকে জানানো হয়, ঝাড়খন্ডের গড্ডায় আদানির ১৬শ মেগাওয়াটের বিদ্যুৎ প্রকল্পের নির্মাণ অগ্রগতি প্রায় ৯৪ শতাংশ। আগামী ১৬ ডিসেম্বর প্রথম ইউনিট বাণিজ্যিক উৎপাদনে যাবে। এসআলমের বিদ্যুৎকেন্দ্রের নির্মাণ অগ্রগতি প্রায় ৯৭ শতাংশ।

ঢাকা মহানগরীতে প্রি-পেইড মিটার স্থাপনে ধীরগতির বিষয়ে বিদ্যুৎ সচিব কমিটিকে জানান, ডিপিডিসি ও ডেসকো কনসাল্টিং ফার্ম-সংক্রান্ত জটিলতার কারণে সময় মতো প্রকল্প বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয়নি। তবে কাজ চলছে, ২০২৫ সালের মধ্যে ঢাকার সব গ্রাহক প্রি-পেইড মিটারের আওতায় চলে আসবে। সংসদীয় কমিটিকে জানানো হয়, গত ২০২০-২১ অর্থবছরে পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড ৯৫৯ কোটি টাকা আয় করেছে। এর মধ্যে নিট মুনাফা ১০৬ কোটি টাকা।