ঢাকার সিজেএম আদালত থেকে দুই জঙ্গি ছিনতাইয়ের ঘটনায় পঞ্চগড়ের বাংলাবান্ধা ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট বিশেষ সতর্কতা জারি করা হয়েছে। একই সাথে জেলার তিন পাশজুড়ে বাংলাদেশ-ভারতের বিভিন্ন সীমান্ত এলাকাতেও নজরদারিসহ গোয়েন্দা তৎপরতা বাড়ানো হয়েছে।

বাংলাবান্ধা ইমিগ্রেশন ও সীমান্ত সূত্র জানায়, ঢাকায় মৃত্যুদণ্ড সাজাপ্রাপ্ত আসামি মইনুল হাসান শামীম ওরফে সিফাত ওরফে সামির ও আবু ছিদ্দিক সোহেল ওরফে সাকিব নামে দুই জঙ্গিকে ছিনিয়ে নেওয়ার ঘটনায় সতর্ক পঞ্চগড়ের বাংলাবান্ধা ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট এবং সীমান্ত এলাকা। ঘটনার পর রোববার বিকেলে পুলিশের বিশেষ শাখা থেকে বাংলাবান্ধা ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট সতর্কতা নিয়ে একটি চিঠি এসেছে। সাথে ছিনতাই হওয়া দুই জঙ্গির নাম ও ছবিও পাঠানো হয়েছে।

জানা গেছে, মৃত্যুদণ্ড সাজাপ্রাপ্ত জঙ্গি মইনুল হাসান শামীম ওরফে সিফাত ওরফে সামির এবং মো. আবু ছিদ্দিক সোহেল ওরফে সাকিবকে রোববার দুপুরে ঢাকার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত ফটকের সামনে থেকে ছিনতাইকারীরা ছিনিয়ে নিয়ে পালিয়ে যায়। এই দুই জঙ্গি প্রকাশক ফয়সল আরেফিন দীপন এবং ব্লগার অভিজিৎ রায় হত্যা মামলার মৃত্যুদণ্ড সাজাপ্রাপ্ত আসামি।

বাংলাবান্ধা ইমিগ্রেশন পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নজরুল ইসলাম বলেন, করোনা পরবর্তী ইমিগ্রেশন সুবিধার আবারও চালু হলেও বাংলাবান্ধা ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট দিয়ে বর্তমানে বাংলাদেশি নাগরিকদের ভারতীয় ভিসা দেওয়া হচ্ছে না। তবুও মৃত্যুদণ্ড সাজাপ্রাপ্ত আসামি মইনুল হাসান শামীম ওরফে সিফাত ওরফে সামির ও আবু ছিদ্দিক সোহেল ওরফে সাকিবের নাম ও ছবিসহ স্টপ লিস্টে রাখা হয়েছে। আমরা এ ব্যাপারে সতর্ক রয়েছি।