পাঁচ বছর আগে রাজধানীর বাড্ডায় পৌনে চার বছর বয়সী এক শিশুকে ধর্ষণের পর হত্যার দায়ে একজনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। মৃত্যুদণ্ড পাওয়া আসামির নাম শিপন। রায় ঘোষণার পর তাঁকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৭-এর বিচারক সাবেরা সুলতানা খানম আজ বুধবার এ রায় ঘোষণা করেন। 

এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন আদালতের সরকারি কৌঁসুলি (পিপি) আফরোজা ফারহানা আহমেদ। তিনি বলেন, শিশুটিকে ধর্ষণের পর হত্যার কথা স্বীকার করে আসামি শিপন আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছিলেন।

মামলা ও আদালতের কাগজপত্রের তথ্য বলছে, ২০১৭ সালের ৩১ জুলাই বাড্ডার আদর্শনগর থেকে শিশুটির লাশ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় শিশুটির বাবা বাদী হয়ে বাড্ডা থানায় মামলা করেন। মামলাটি তদন্ত করে ২০১৯ সালের ২৬ জানুয়ারি শিপনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দেয় পুলিশ।

পুলিশ ও স্থানীয় লোকজনের ভাষ্যমতে, শিশুটির বাবা-মা আদর্শনগর এলাকায় টিনশেড বাড়ির একটি কক্ষ ভাড়া নিয়ে থাকতেন। বাড়িটিতে অনেকগুলো কক্ষ ছিল। প্রায় প্রতিটি কক্ষেই একটি করে পরিবার থাকত। সবার ব্যবহারের জন্য শৌচাগার ছিল একটি। ওই শৌচাগার থেকেই শিশুটির লাশ উদ্ধার করা হয়েছিল।