তারুণ্যের জয়গান শুনতে কার না ভালো লাগে। এবারের বিশ্বকাপে তরুণদের হাতেই আলোর মশাল। গ্রুপ পর্বের দৃশ্যপট তেমন কথাই বলছে। এখন পর্যন্ত সেরা গোলদাতার চারটি আসনের তিনটিই তরুণদের দখলে। তাঁরা হলেন ইংল্যান্ডের মার্কোস রাশফোর্ড, নেদারল্যান্ডসের কডি গাকপো ও ফ্রান্সের কিলিয়ান এমবাপ্পে। তাঁদের সঙ্গে এবার ফেভারিট আর্জেন্টিনার তরীটাও বেয়ে নিয়ে যাচ্ছেন তিন তরুণ। মেক্সিকোর বিপক্ষে লিওনেল মেসির গোলের পর এনজো ফার্নান্দেজের চোখ জুড়ানো গোল। এর পর বুধবার রাতে বাঁচা-মরার লড়াইয়ে মেসির পেনাল্টি মিসের পরও দুই তরুণ অ্যালেক্সিস ম্যাক অ্যালিস্টার ও হুলিয়ান আলভারেজে পার হয়ে যায় আকাশি-সাদারা।

সামনে আরও কঠিন পথ। নকআউটে অস্ট্রেলিয়াকে পেয়েছে আর্জেন্টিনা। শনিবার ম্যাচটি হবে বাংলাদেশ সময় রাত ১টায়। যদিও ডি মারিয়াকে নিয়ে শঙ্কা রয়েছে। সময় খুব একটা হাতে নেই মেসিদের। তাই ওই ম্যাচের জন্য তড়িঘড়ি করেই প্রস্তুতি সারতে হবে। আর সেখানেও নজর থাকবে তিনজনের ওপর। যাঁদের মধ্যে দারুণ সম্ভাবনা আলভারেজের। লাউতারো মার্টিনেজ সর্বশেষ ম্যাচে শুরুর একাদশে ছিলেন না। বদলি হয়ে পরে নামলেও সুযোগ নষ্ট করেন তিনি। সেজন্য নকআউট সাগর পাড়ি দিতে আলভারেজ হতে পারেন আক্রমণভাগের অন্যতম সারথি। ২০২১ সালে জাতীয় দলে অভিষেক হয়েছিল আলভারেজের। রিভার প্লেটে থাকাকালে সতীর্থরা তাঁকে স্পাইডার বলে ডাকতেন। তাঁর স্বপ্ন ছিল বিশ্বকাপে মেসির সঙ্গে খেলা। কাতারে সেই স্বপ্ন পূরণ হলো এই সেন্টার ফরোয়ার্ডের। এখন পর্যন্ত ১৫ ম্যাচে অংশ নিয়েছেন আলভারেজ। যেখানে তাঁর গোল চারটি। এর মধ্যে পোল্যান্ডের বিপক্ষে করা গোলটিকেই সেরার খাতায় রাখবেন তিনি। ফিনিশিং, ড্রিবলিং আর লং শটে দুর্দান্ত আলভারেজ সামনে আরও দ্যুতি ছড়াবেন, এমনই বিশ্বাস দুইবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের।

তাঁর সঙ্গে মাঝমাঠের সেনানী এনজোও দিন দিন হয়ে উঠছেন ভয়ংকর। বেনফিকার এই খেলোয়াড়কে এরই মধ্যে বিশ্বের নামিদামি ক্লাবগুলো কিনতে চাইছে। বল নিয়ে কারিকুরি, বুলেট গতির শট আর নিখুঁত পাসে ইতোমধ্যে আর্জেন্টাইন কোচ লিওনেল স্কালোনির গুড লিস্টে নাম উঠিয়েছেন। এ বছরই আর্জেন্টিনার জাতীয় দলের জার্সিটা গায়ে ওঠে এনজোর। ক্লাব ক্যারিয়ার রাঙিয়ে নজরে পড়েন স্কালোনির, এর পর বিশ্বকাপ দল থেকে বিশ্বকাপের মঞ্চে ছড়াচ্ছেন আলো। এ ছাড়া সর্বশেষ পোল্যান্ডের বিপক্ষে গোল করা অ্যালিস্টারও এখন আর্জেন্টিনার ভরসার নাম।