বাজি ধরে গরম চা পান করে মোস্তাফা (২০) নামে এক রোহিঙ্গা তরুণ মারা গেছেন। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় কক্সবাজারের ঈদগাঁও ইসলামপুরের নতুন অফিস বাজারে এই ঘটনা ঘটে। তিনি উখিয়ার কুতুপালং নিবন্ধিত ক্যাম্পের বাসিন্দা।

মোস্তাফা নতুন অফিস বাজারে তাওয়াককুল জুস কর্ণারে চাকরি করতেন বলে স্থানীয়রা জানিয়েছে। শুক্রবার ময়নাতদন্তের জন্য তার মরদেহ জেলা সদর হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, আছরের নামাজের পরে তিন বন্ধু চায়ের টেবিলে বাজি ধরে ঘোষণা দেয়, ‘৫ সেকেন্ডে গরম চা কে খেতে পারবে?’ কেউ সাহস না করলেও মোস্তাফা এক কাপ গরম চা খেয়ে ফেলেন। তার গলায় যন্ত্রণা শুরু হলে ঈদগাঁওর একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। কর্তব্যরত চিকিৎসক প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়ার পর অবস্থার অবনতি হলে জেলা সদর হাসপাতালে স্থানান্তর করেন। তবে সদর হাসপাতালে ভর্তির আগেই মারা যান তিনি।

দোকানের মালিক মোহাম্মদ জমির উদ্দীন বলেন, ‘বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে দোকান থেকে বের হয়ে বাসায় যায়। সারাদিনের ক্লান্ত শরীরে ঘুমিয়ে পড়ি। ছোট ভাই কায়েস ঘুম থেকে আমাকে ডেকে দিয়ে ঘটনাটি জানায়। ততক্ষণে মোস্তফাও বাসায় যায়। তার শরীর খারাপ লাগার কথা জানালে দ্রুত ঈদগাঁও ডায়াবেটিস কেয়ার হাসপাতালে নিয়ে যায়। প্রাথমিক চিকিৎসা দেন চিকিৎসক। পরে অবস্থা আশঙ্কাজনক হলে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নেওয়ার পথে সে মারা যায়।’

ঈদগাঁও থানার ওসি মোহাম্মদ গোলাম কবির বলেন, ‘তিন বন্ধু খেলার ছলে বাজি ধরে। তাদের একজন মোস্তাফা গরম চা খেয়ে ফেলে। এতে সে অসুস্থবোধ করলে হাসপাতালে নেয়। সেখানে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। পরিবারের অভিযোগ পেলে খতিয়ে দেখবে পুলিশ।’