সম্প্রতি কুড়িগ্রামের পাঁচ বছরের শিশু মাইশার হাতের অপারেশন করতে ঢাকায় নিয়ে এসেছিলেন তার পরিবার। কিন্তু এই হাতের চিকিৎসাই কাল হয়ে দাঁড়ায় মাইশার জীবনে। 

পরিবারের লোকজনের দাবি, জাতীয় ক্যান্সার গবেষণা ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের সহকারী অধ্যাপক (সার্জারি) ডা. আহসান হাবীবকে দেখাতে মিরপুর ইসলামী ব্যাংক হাসপাতালে মাইশাকে নিয়ে যান তার বাবা দিনমজুর মোজাফফর। মাইশার হাত দেখে চিকিৎসক আহসান হাবীব বলেন, ‘অপারেশন করলে হাত স্বাভাবিক হবে।’ 

পরে মাইশাকে রূপনগরে আলম মেমোরিয়াল হাসপাতাল নামে একটি অবৈধ (অনিবন্ধিত) ও অস্বাস্থ্যকর হাসপাতালে নিয়ে তার অস্ত্রোপচার করেন ডা. আহসান হাবীব। অপারেশন থিয়েটারে ঢোকার তিন ঘণ্টা পরে মাইশার লাশ বের হয় সেখান থেকে। এই ঘটনার পর আলম মেমোরিয়াল হাসপাতাল বন্ধ করল স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। 

রোববার (৪ ডিসেম্বর) স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হাসপাতাল ও ক্লিনিক শাখার ভারপ্রাপ্ত পরিচালক ডা. শেখ দাউদ আদনান সাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানানো হয়। 

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, অধিদপ্তরের পরিদর্শন কার্যক্রমের চলমান প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে আলম মেমোরিয়াল হাসপাতালে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, প্রতিষ্ঠানটি নিয়মানুগভাবে নিবন্ধিত নয়, যা সম্পূর্ণ বেআইনি। এছাড়া পরিদর্শন দল প্রতিষ্ঠানে কর্মরতদের মৌখিকভাবে এই অবৈধ কাজ তথা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করার নির্দেশনা দিয়েছেন। পরিদর্শন শেষে লিখিতভাবেও এই অবৈধ প্রক্রিয়ায় স্বাস্থ্যসেবা প্রদান হতে বিরত থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়।