ঢাকা মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

বাবা ও মায়ের কাছে জাপানি ৩ শিশুকে ‘ভাগ করে’ দিলেন হাইকোর্ট

বাবা ও মায়ের কাছে জাপানি ৩ শিশুকে ‘ভাগ করে’ দিলেন হাইকোর্ট

বাবা ইমরান শরিফ ও জাপানি মা নাকানো এরিকো। ফাইল ছবি

সমকাল প্রতিবেদক 

প্রকাশ: ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ | ১৬:২৬

বাংলাদেশে অবস্থানরত বড় মেয়ে ও জাপানে থাকা ছোট মেয়েকে জাপানি মা নাকানো এরিকো তার কাছে রাখতে পারবেন। একই সঙ্গে মেজ মেয়েকে বাবা ইমরান শরীফ তার কাছে রাখতে পারবেন বলে রায় দিয়েছেন হাইকোর্ট। এ দেশে থাকা বড় মেয়ে ও মেজ মেয়ের বিষয়ে নিম্ন আদালতের দেওয়া রায়ের বিরুদ্ধে বাবার করা রিভিশন আবেদন আংশিক মঞ্জুর করে মঙ্গলবার এ রায় দেন বিচারপতি মামনুন রহমানের একক হাইকোর্ট বেঞ্চ।

রায় অনুযায়ী বাবা-মা ও সন্তানরা একে অপরের সঙ্গে দেখা সাক্ষাৎ করতে পারবে বলে জানান মায়ের পক্ষের আইনজীবী। এ দিকে উভয় পক্ষই এই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করবেন বলে জানিয়েছেন তাদের আইনজীবীরা।

আদালতে ইমরান শরীফের পক্ষে ছিলেন সিনিয়র আইনজীবী ব্যারিস্টার আখতার ইমাম ও ব্যারিস্টার রাশনা ইমাম। অন্যদিকে নাকানো এরিকোর পক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার আজমালুল হোসেন কিউসি ও অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ শিশির মনির।

জাপানের নাগরিক এরিকো ও বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ইমরানের ২০০৮ সালের ১১ জুলাই জাপানে বিয়ে হয়। তাদের তিনটি কন্যা সন্তান আছে। ২০২১ সালের ১৮ জানুয়ারি এরিকোর সঙ্গে বিবাহবিচ্ছেদের আবেদন করেন ইমরান। একই বছরের ২১ ফেব্রুয়ারি দুই মেয়েকে (বড় ও মেজ) নিয়ে বাংলাদেশে চলে আসেন তিনি। ছোট মেয়ে জাপানে আছে।

ইমরানের কাছ থেকে দুই মেয়েকে ফিরে পেতে ঢাকায় এসে ২০২১ সালের আগস্টে হাইকোর্টে রিট করেন এরিকো। অন্যদিকে ছোট মেয়েকে ফিরে পেতে পৃথক রিট করেন ইমরান। পৃথক রিটের ওপর শুনানি নিয়ে দুই শিশু তাদের বাবা ইমরানের হেফাজতে থাকবে বলে একই বছরের ২১ নভেম্বর হাইকোর্ট আদেশ দেন। এই আদেশ স্থগিত চেয়ে আপিল বিভাগে আবেদন করেন এরিক।

পরবর্তীতে এরিকোর করা আবেদন (লিভ টু আপিল) নিষ্পত্তি করে গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে আদেশ দেন আপিল বিভাগ। আদেশে বলা হয়, ঢাকার পারিবারিক আদালতে থাকা মামলাটি (২০২১ সালে শিশুদের বাবার করা) নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত জাপান থেকে আসা দুই শিশু তাদের মায়ের হেফাজতে থাকবে। শিশুদের বাবা তাদের সঙ্গে দেখা করার সুযোগ পাবেন।

আদেশে আরও বলা হয়, মামলার পারিপার্শ্বিক বিষয় ও শিশুদের স্বার্থ বিবেচনায় তাদের এ আদালতের এখতিয়ারের বাইরে (দেশের বাইরে) নেওয়া যাবে না। আপিল বিভাগের আদেশের অনুলিপি পাওয়ার তিন মাসের মধ্যে সংশ্লিষ্ট পারিবারিক আদালতকে মামলাটি নিষ্পত্তি করতে নির্দেশ দেন। পরে শিশুদের বাবার আপিল খারিজ করে শিশু জেসমিন মালিকা ও লাইলা লিনা মায়ের সঙ্গে থাকবে বলে রায় দেন ঢাকার দ্বিতীয় অতিরিক্ত সহকারী জজ ও পারিবারিক আদালতের বিচারক দুরদানা রহমান। এই রায়ের বিরুদ্ধে বাবা আপিল করলে সে আপিল খারিজ করে দুই শিশু সন্তান তাদের মায়ের জিম্মায় থাকবে বলে রায় দেন ঢাকা জেলা ও দায়রা জজ হাবিবুর রহমান ভুঁইয়া। সেই রায়ের বিরুদ্ধে পরবর্তী হাইকোর্টে রিভিশন আবেদন করে শিশুদের বাবা।

আরও পড়ুন

×